রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০

ক্লাসে নবী সা.-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে বরখাস্ত বেলজিয়ান শিক্ষিকা



ব্রাসেলস, ১ নভেম্বর­‌: ইউরোপজুড়ে বাড়তে থাকা ইসলাম বিদ্বেষী আগুনে ঘি ঢেলেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ নানান উপায়ে মুসলিম বিদ্বেষ ছড়িয়ে দেওয়াই ফ্রান্স সরকারের মূল এজেন্ডা হয়ে গিয়েছে। তবে শুধু ফ্রান্স নয়, ইউরোপের বহু দেশ ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা বের করে এই ধর্মকে কলুষিত করার চেষ্টা করছে। ফরাসি পত্রিকা শার্লি এবদোয় প্রফেট মুহাম্মদ সা.কে অবমাননা করে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের পর থেকেই ফরাসি প্রেসিডেন্ট নানান মুসলিম বিরোধী বক্তব্য দিয়ে চলেছেন, এর সমর্থনে মতামতও রেখেছেন স্বনামধন্য রাজনীতিবিদরা।


এবার সেই ধারা বজায় রেখে,  নিহত ফরাসি শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটির আদলে ক্লাসে মুহাম্মদ সা.-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করেছেন বেলজিয়ামের এক শিক্ষিকা। শুক্রবার রাজধানী ব্রাসেলসের মোলেনবিক সেন্ট-জিন এলাকার একটি স্কুলে এই অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটে। সূত্রের খবর, মহানবী সা.কে নিয়ে তৈরি শার্লি এবদোর কার্টুনটিই পঞ্চম ও ষষ্ঠ শ্রেণীর পড়‍ুয়াদের দেখিয়েছিলেন ওই স্কুল শিক্ষিকা। সেইসঙ্গে তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের জানান, এই ব্যঙ্গচিত্র দেখানোর পর কিভাবে একজন ফরাসি শিক্ষক নিহত হয়েছিলেন। বেলজিয়ান শিক্ষিকার এই কাজের খবর জানতে পেরেই তাকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নেয় স্কুল কর্তৃপক্ষ।

 

তবে নিরাপত্তার খাতিরে বরখাস্ত সেই শিক্ষিকার নাম প্রকাশ করেনি কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, স্কুলে সেই ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের পরই কয়েকজন পড়‍ুয়ার অভিভাবক কর্তৃপক্ষের কাছে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে লিখিত নালিশ করেন। এরপরই শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এখন স্কুলটিতে সেই শিক্ষিকা পুনরায় চাকরি করতে পারবেন কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে আদালত। 


অভিযোগ দায়েরকারী অভিভাবকরা জানান, ওই স্কুলশিক্ষক ক্লাসে একটি ট্যাবলেট নিয়ে আসেন এবং সেখান থেকে মুহাম্মদ সা.-এর কার্টুনগুলো শিক্ষার্থীদের দেখান। সেইসঙ্গে তিনি বলেছিলেনে, যারা এসব দেখতে চায় না তারা যেন মাথা নিচু করে থাকে। মোলেনবিক শহরের মেয়রের মুখপাত্র এ প্রসঙ্গে জানান, ‘এই অশ্লীল কার্টুন দেখার পরই আমার এই সিদ্ধান্ত। যদি এটা নবী সা.-এর নাও হতো তাহলেও আমরা একই কাজ করতাম।’ 





একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only