সোমবার, ৯ নভেম্বর, ২০২০

লাগামহীন আলু-পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি রুখতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে চিঠি মমতার



মূল্যবৃদ্ধির কারণে বাজার আগুন। আলু- পেঁয়াজ থেকে শুরু করে নিত্য প্রয়োজনীয় দব্য সব কিছু কিনতেই নাভিশ্বাস উঠছে মধ্যবিত্তের। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ নিয়ে চিন্তিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য সরকারের তরফে যা করনীয় তা তিনি আগেই করেছেন। তাতেও দাম নিয়ন্ত্রণে আসছে না। সবচেয়ে বড় বিষয়, আলু পেঁয়াজ থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইন থেকে বাদ দেওয়ায় কারণে কোনওভাবেই এগুলির দাম নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। রাজ্য সরকারের তরফে টাস্কফোর্স ও এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের কর্তাদের নামিয়ে সরকার দেখেছে কেন্দ্রীয় আইনের সুযোগ নিয়ে বাড়ছে মজুতদারি। আর এর পেছনে কেন্দ্রের সংশোধিত আইন। তাই ক্রমবর্দ্ধমান মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রের সহায্য চাইলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠি লিখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হস্তক্ষেপ চাইলেন তিনি।


এদিন প্রাধনমন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রী যে চিঠি দিয়েছেন তাতে লেখা হয়েছে, কেন্দ্রের কৃষি আইন রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথা না বলেই তৈরি করা হয়েছে। এই কৃষি আইনের অত্যাবশ্যকীয় তালিকায় থাকা আলু, পেঁয়াজ ভজ্য তেলের মতো বিষয়গুলিকে বাদ দেওয়া হয়েছে।এই এগুলিকে অত্যাবশ্যকীয় তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার ফলে বাজার ওপেন হয়ে গিয়েছে।এর ফলে প্রতিদিন দাম বাড়ছে এই নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যগুলির। 


নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম দাঁড়ায় মধ্যবিত্তের হেঁসেলে টানা পড়েছে। এমনিতে করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের হাতে অর্থ কম তার উপর মরার উপর খাড়ার ঘায়ের মতো কাজ করছে এই ঘটনাগুলি। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুরোধ এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের কথা ভেবে উদ্যোগী হোন। এদিন মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্টভাষায় জানিয়ে দেন, কেন্দ্রের অত্যাবশ্যকীয় আইন  সংশোধনের ফলেই চাল-ডাল-তেল ও আলু-পিঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে গেছে। অবিলম্বে এর একটা সুরাহা হওয়া প্রয়োজন।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only