বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০

মিম বিজেপির দোসরঃ অধীর সাধারণ মানুষকে সতর্ক থাকার বার্তা



পুবের কলমপ্রতিবেদকঃ রাজ্যে বিজেপির দোসর মিম। সংখ্যালঘ‍ু ভোট বিভাজনের লক্ষ্যেই বাংলায় মিমকে নিয়ে আসা হচ্ছে। মঙ্গলবার এই দাবি করেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরি। এ দিন জোট কাঠামো নিয়ে বৈঠকে বসেন, বাম ও কংগ্রেস নেতারা। সেখানেও এই প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা হয়। পাশাপাশি এ দিন তিনি ফুরফুরা শরীফে গিয়ে সংখ্যালঘ‍ু ভোট বিভাজন নিয়ে বৈঠকও করেন। এর পরই প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির পর্যালোচনা, সংখ্যালঘ‍ু ভোট বিভাজনে মিমকে ব্যবহার করছে বিজেপি। 


এ দিন রাজ্যের সংখ্যালঘ‍ু মানুষজনকে মিম নেতৃত্বকে বিশ্বাস না করার কথাও বলেন। তিনি সাবধান করেছেন শুধু বিহার নয়। সর্বত্রই যেূানে বিজেপি এবং বিজেপি বিরোধী জোটের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখা যায় সেখানেই ভোট বিভাজনের লক্ষ্যে মিমকে ব্যবহার করে বিজেপি। এ দিকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির বক্তব্যের ঠিক উলটো মত প্রকাশ করেছেন বিজেপির রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি দাবি করেছেন, রাজ্যের সংখ্যালঘ‍ুদের প্রকৃত প্রয়োজন না মিটিয়ে তাঁদের নিয়ে রাজনীতি করেছে বাংলার শাসকদল। আর সে কারণেই রাজ্যে মিমের বাড়বাড়ন্ত লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তৃণমূলের কারণেই এ রাজ্যে মিম ফেক্টর। এর পেছনে বিজেপির কোনও হাত নেই। 


উল্লেখ্য, বিহার বিধানসভা নির্বাচনের পর এবার ২৪টি আসনে লড়াই করে ৫ আসনে জয় পেয়েছে মিম। বিহারে মোট ভোটের ১.২৮ শতাংশ গিয়েছে এই সংখ্যালঘ‍ু রাজনৈতিক দলটির দখলে। এর পর থেকেই রাজ্য রাজনীতির আলোচনাতে বারবার ঘুরে ফিরে আসছে মিম প্রসঙ্গ। যদিও রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের এই নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খোলেনি। তবে বিজেপি ও কংগ্রেস এই নিয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিতে শুরু করেছে। বিশেষ করে কংগ্রেস নেতৃত্ব সাধারণ মানুষকে মিমের প্রকৃত অভিসন্ধি বুঝে বিজেপির হাত শক্ত না করার জন্য আহ্বান জানিয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি মিম নেতাদের রাজাকারের সঙ্গে তুলনা করতেও দ্বিধা করেননি। এখন দেখার অধীর চৌধুরি বা বিরোধী নেতাদের এই বক্তব্যে রাজ্যের সাধারণ সংখ্যালঘ‍ু মানুষ কতটা সাড়া দেয়। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only