মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০

ভ্যাকসিন নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করতে প্রস্তুত রাজ্য: মমতা



পুবের কলম প্রতিবেদক:মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, রাজ্যবাসীর কাছে কোভিড ভ্যাকসিন পৌঁছে দিতে কেন্দ্র সরকারের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে প্রস্তুত রাজ্য সরকার। এই মুহূর্তে দেশবাসী অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে, এই মারন ভাইরাস থেকে বাঁচতে কবে প্রতিষেধক বাজারে আসবে তার জন্য। আর এমতাবস্থায় রাজ্য সরকার তার প্রয়োজনীয় হোমওয়ার্ক করেই রেখেছে। উল্লেখ্য এ দিন বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এই বৈঠকে অন্যান্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। জেলা সফরের মাঝেই এদিন বাঁকুড়া থেকে ভার্চুয়াল এই কনফারেন্সে যোগ দেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী এবং সেখানে তিনি বার্তা দেন, কবিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যেমন কেন্দ্রের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছে রাজ্য। একইভাবে প্রতিষেধক বিতরণের ক্ষেত্রেও যৌথভাবে কাজ করবেন তাঁরা।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকারের হাতে প্রশিক্ষিত কর্মী বাহিনী রয়েছে, একইসঙ্গে প্রতিষেধক সঞ্চয়ের জন্য যে অত্যাধুনিক ব্যবস্থার প্রয়োজন তাও তৈরি রেখেছে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্রের সঙ্গে প্রতিষেধক প্রধানের এই কর্মসূচিতে যৌথভাবে কাজ করতে আমরা প্রস্তুত।

এদিনের ভার্চুয়াল কনফারেন্সেও করোনা লড়াইয়ে কেন্দ্রের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা সেরকম পাওয়া যায়নি বলেই প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা পর্বে রাজ্য ইতিমধ্যেই ৪ হাজার কোটি টাকা খরচ করেছে। কেন্দ্রের কাছ থেকে এর মধ্যে মিলেছে মাত্র ১৯৩ কোটি টাকা। জিএসটি বাবদ এখনও বকেয়া রয়েছে সাড়ে ৮ কোটি টাকা। সেই টাকা কেন্দ্র দিক।’

একইসঙ্গে তিনি রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘দুর্গা, কালী আর ছট পুজোর মতো উৎসব পালন করা হয়েছে রাজ্যে। তারপর চালু হয়েছে লোকাল ট্রেনও। তা সত্ত্বেও সংক্রমণ আর মৃত্যুর হার কমেছে রাজ্যে। বেড়েছে সুস্থতার হারও। পশ্চিমবঙ্গ সীমান্ত রাজ্য, বাইরে থেকে প্রচুর লোক আসা যাওয়া করে। তাই সংখ্যা বেশ খানিকটা বেড়েছে। কিন্তু তা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

পাশাপাশি, টিকাকরণ পর্বে কেন্দ্রের সঙ্গে সমস্ত সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রাজ্য বলেই প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের এই ভার্চুয়াল বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন,  যত দ্রুত ভ্যাকসিন জোগাড় করা যায়, ততই ভালো। তাতে সারা দেশের লোকেরই মঙ্গল। এই ক্ষেত্রে কেন্দ্র ও সবপক্ষের সঙ্গেই রাজ্য একযোগে কাজ করতে প্রস্তুত।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only