সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০

‘মাদ্রাসা পরিচালনা’ সম্পর্কিত জনস্বার্থ মামলার নিষ্পত্তি করল সুপ্রিম কোর্ট



পুবের কলম প্রতিবেদক­‌: মাদ্রাসা পরিচালনা নিয়ে জনস্বার্থ মামলার নিষ্পত্তি করল সুপ্রিম কোর্ট। ‘পশ্চিমবঙ্গের মাদ্রাসাগুলি সংখ্যালঘু প্রতিষ্ঠান হলেও সরকার দ্বারা পরিচালিত হয়। তাহলে অন্য রাজ্যের মাদ্রাসাগুলি কী ভাবে চলে? দেশের সংবিধানের ৩০ নম্বর ধারা ভিন্ন ভিন্ন কেন’---সেই ব্যাখ্যা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টে গত ফেব্র‍ুয়ারি মাসে জনস্বার্থ মামলা করেন আইনজীবী আবু সোহেল। 


সোমবার ওই মামলার শুনানি ছিল। এদিন ওই মামলার নিষ্পত্তি করে সর্বোচ্চ আদালত। একইসঙ্গে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও বদলি নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আলাদাভাবে মামলা করার পরামর্শ দেয়। সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ অনুসারে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে মামলা করা হবে  বলে জানিয়েছেন আইনজীবী।  সেই মামলায় জানতে চাওয়া হবে, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ এবং শিক্ষক বদলি কমিটি, না কমিশন করবে।


জনস্বার্থ মামলাকারীর আইনজীবী আবু সোহেল জানান, ২০২০ সালের ৬ জানুয়ারির মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন শিক্ষক নিয়োগ করতে পারবে। কিন্তু শিক্ষক বদলি বা প্রধান শিক্ষক নিয়োগ সম্পর্কে সর্বোচ্চ আদালত ওই রায়ে কিছু জানায়নি। 


এদিন সুপ্রিম কোর্ট পরামর্শ দিয়েছে, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ ও বদলি নিয়ে আলাদাভাবে মামলা দায়ের করতে। তাই আগামী সপ্তাহে পুনরায় বদলি এবং প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে মামলা দায়ের করা হবে। তিনি বলেন,  কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্থা ন্যাশনাল কমিশন ফর মাইনোরিটি এডুকেশনাল ইনস্টিটিউশনের ২০০৪ সালের নিয়মানুসারে, যত সংখ্যালঘু প্রতিষ্ঠান রয়েছে, ওই প্রতিষ্ঠান নিজেদের মতো পরিচালনা করবে। 


এদিকে,পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন পুনরায় বদলি প্রক্রিয়া শুরু করবে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে। আগামী ২৮ নভেম্বর থেকে ‘জেনারেল ট্রান্সফার’ শুরু হবে। মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, ‘মিউচুয়াল ট্রান্সফার’-এর জন্য বহু শিক্ষক আবেদন করেছিলেন। কিন্তু এই সব আবেদনকারীদের জন্য কিছু বলেনি কমিশন। মাদ্রাসার ২ হাজার ৫৬৫ জন শিক্ষক নিজের বাড়ির কাছের মাদ্রাসায় বদলির জন্য আবেদন করেন। 


তার মধ্যে গত ফেব্র‍ুয়ারি মাসে বিজ্ঞান বিষয়ের ২৫০ জন শিক্ষককে বদলি করা হয়েছে। এর মধ্যে বাকী ২ হাজার ৩১৫ জন শিক্ষকের তালিকা প্রকাশ করবে কমিশন। আগামী ২৮ নভেম্বর পাশ কোর্সের শিক্ষকদের বদলির কাউন্সেলিং শুরু হবে। চলবে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। পোস্ট গ্রাজুয়েট এবং অনার্স কোর্সের শিক্ষকদের বদলির কাউন্সেলিং ৭ ডিসেম্বরের পর শুরু হবে, শেষ হবে ২৮ ডিসেম্বর। 


এদিকে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার দিনক্ষণও ঘোষণা করেছে।  পরীক্ষা হবে ১০ জানুয়ারি। মাদ্রাসায় প্রধান শিক্ষক শূণ্য পদ রয়েছে ২১৯ টি। এই পদে আবেদন প্রার্থী  ছিলেন ৩ হাজার ৫০০ জন। অন্যদিকে কর্মশিক্ষা ও শারীর শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষার দিনক্ষণও প্রকাশ করা হয়েছে। কর্মশিক্ষা- শারীর শিক্ষা পরীক্ষা হবে ১৭ জানুয়ারি। এতে শূণ্য পদ ছিল ২০০টি। আবেদন প্রার্থী ছিলেন ৫ হাজার ৫০০ জন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only