শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০

ডিজিট্যাল মিডিয়াকে স্বীকৃতির জন্য লড়াই শুরু, পিআইবির পূর্বাঞ্চলের নির্দেশকের সঙ্গে দেখা করে দাবি পেশ


গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞরা বলছে আগামী সময়টা নাকি ডিজিট্যাল মিডিয়ার।যত সময় যাচ্ছে এই মাধ্যমটি অত্যন্তপূর্ণ হয়ে উঠছে। বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়া, মুঠো ফোন আর জেট গতির জুগে। এই মাধ্যম অনেক সময়োপযোগী। অথচ কেন্দ্র বা রাজ্য এযাবৎয একে নিয়ে খুব বেশি ভাবত না। সমপ্রতি অবশ্য ঘুম ভেঙেছে কেন্দ্রের। গত ৯ নভেম্বর  ডিজিটাল মিডিয়াকে প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সমান গুরুত্ব দিয়ে স্বীকৃতি দিয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার একটি নির্দেশ জারি করে ডিজিটাল বা অনলাইন মিডিয়া, চলচ্চিত্র এবং অডিও-ভিসুয়াল প্রোগ্রামকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের অধীনে নিয়ে এসেছে। এই প্রস্তাবে রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষরও করেছেন। 


এমতাবস্থায় রাজ্যের ডিজিট্যাল মিডিয়াগুলিয়ে এক ছাতার তলায় এনে স্বীকৃতির জন্য লড়াই করছে সদ্য গঠিত ডিজিটাল মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশন। বর্তমানে যাঁদের সদস্য সংখ্যা ৩ শতাধিক। গত  ১৮ নভেম্বর পি আই বি-র আমন্ত্রনে ডিজিটাল মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশনের কার্যকরী সমিতির সদস্যরা কলকাতার  আঞ্চলিক দফতরে  পূর্বাঞ্চলের নির্দেশক   আর মিশ্রার সঙ্গে দেখা করেন। পাশাপাশি ডিজিটাল সংবাদকর্মীদের একাধিক দাবি সম্বলিত একটি পত্র লিখিত আকারে তাঁর কাছে পেশ করেন। আলোচনা হয় আগামী দিনে কোন পথে হাঁটতে চলেছে ডিজিটাল মিডিয়া এবং কোন পথে তার ভবিষ্যৎ ইত্যাদি নিয়ে।


সংগঠনের সভাপতি অরিন্দম রায় চৌধুরী ব্যাখ্যা  করে বোঝান, বর্তমান পরিস্থিতিতে কি প্রয়োজন এই সংগঠনের ?অপরদিকে  ডিজিটাল মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক সুব্রত রায় বলেন, এই সংগঠনের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের সঙ্গে সেতুবন্ধনের কাজ শুরু হয়েছে। ডিজিটাল মিডিয়াকে আর অগ্রাহ্য করা যাবে না। এদিনের পি আই বি-র পূর্বাঞ্চলের নির্দেশক রবীন্দ্রনাথ মিশ্রা ও উপ নির্দেশক চিত্রা গুপ্ত-র সঙ্গে যে আলোচনার সময় উপস্থিত ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only