শনিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২০

বঙ্গ বিজেপিতে গোষ্ঠীকোন্দলের কথা স্বীকার অমিতের



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ গোষ্ঠীকোন্দলের মতো মারণব্যাধি যে বঙ্গ বিজেপির শরীরে বাসা বেঁধেছে তা মেনে নিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা দলের প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। শুক্রবার রাজ্য সফরের শেষ দিনে সল্টলেকের পূর্বাঞ্চলীয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে (ইজেডসিসি) সাংবাদিক সম্মেলনে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ,মুকুল রায়,রাহুল সিনহা,কৈলাস বিজয়বর্গীয়দের উপস্থিতিতে দলের অন্দরে খেয়োখেয়ির কথা স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি। তবে তাঁর ব্যাখ্যা ‘আমাদের দল পরিবার তান্ত্রিক নয়। দলে গণতন্ত্র রয়েছে। আর গণতন্ত্রে আলাদা-আলাদা মত থাকতেই পারে।’

সময় যত গড়াচ্ছে ততই বঙ্গ বিজেপির গোষ্ঠী কাজিয়া নগ্নভাবে প্রকাশ হয়ে পড়ছে। দলে নানা মুনির নানা মত। দিলীপ ঘোষ ও মুকুল রায়দের মধ্যে যে বাক্যালাপ তো দূর মুখ দেখাদেখিও বন্ধ সেই খবর ভালোই রাখেন কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। আর সেই কারণেই আগামী বিধানসভা ভোটে কাউকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তুলে ধরা হবে না তাও এ দিন ইজেডসিসি’তে দলীয় নেতাদের সঙ্গে সাংগঠনিক বৈঠকে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। 

এ দিনের সাংবাদিক বৈঠকে ফের একবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি করেছেন ‘আগামী মে মাসের পরে বাংলার ক্ষমতায় বসতে চলেছে বিজেপি। বিধানসভা ভোটে ২০০’র বেশি আসনে জিতে বাংলার ক্ষমতা দখল করবে বিজেপি। নরেন্দ্র মোদির দিকে আশা নিয়ে তাকিয়ে রয়েছে মানুষ।’ কীসের ভিত্তিতে তিনি এমন দাবি করছেন জানতে চাইলে অমিতের জবাব ‘লোকসভা ভোটে প্রেসক্লাবে যখন বলেছিলাম ২২টি আসন পাব , আপনারা হেসেছিলেন। আজ অন্তত হাসছেন না। তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে বাংলার মানুষের মনে প্রচণ্ড আক্রোশ তৈরি হয়েছে। মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের উপরে ক্ষোভে ফুঁসছেন। তাঁরা মনস্থির করে ফেলেছেন বিজেপিকেই ক্ষমতায় নিয়ে আসবেন। ২০০-র বেশি আসনে জিতে সরকার গড়তে চলেছে বিজেপি।’

আবার পরক্ষণেই বাংলার মানুষকে বিজেপিকে সরকার গড়ার সুযোগ দেওয়ার আকুল আর্তি জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন ‘বাংলার মানুষকে বলছি, আপনারা কংগ্রেসকে সুযোগ দিয়েছেন। সিপিএমকেও অনেকবার সুযোগ দিয়েছেন। তৃণমূলকে দু-দু’বার সরকার চালানোর মওকা দিয়েছেন। এবার অন্তত বিজেপিকে একবার সুযোগ দিন। বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলাকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলা হবে।’

মোদি সরকারের বিভিন্ন জনকল্যাণমুখী প্রকল্প বাংলায় চালু না হওয়ার জন্য তৃণমূল সরকারকেও নিশানা করেছেন অমিত শাহ। তাঁর কথায় ‘বাংলায় বহু কেন্দ্রীয় প্রকল্প চালু করতে দিচ্ছে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। আয়ুষ্মান প্রকল্পে সাধারণ মানুষের চিকিৎসার জন্য ৫ লক্ষ টাকা করে পাওয়ার কথা সেটা চালু করেনি তৃণমূল সরকার।  কৃষকনিধি সম্মান প্রকল্পও চালু করা হয়নি। বহু রাজ্যে কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা চলে যাচ্ছে। বাংলায় তা সম্ভব হচ্ছে না।’ একইসঙ্গে কৃষকদের মন জয় করতে টাকার লোভও দেখিয়েছেন কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ‘বিজেপি ক্ষমতায় এলে মে মাস থেকে প্রত্যেক কৃষকের অ্যাকাউন্টে বছরে ৬ হাজার টাকা করে ঢুকে যাবে। টাকার জন্য কাউকে কোনও কাটমানি দিতে হবে না। কেন-না তখন বাংলার ক্ষমতায় থাকবে বিজেপি সরকার।’


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only