শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০

মমতার দাবি মেনে এবার সামাজিক দূরত্বের বদলে ব্যাবহৃত হবে শারীরিক দূরত্ব

 


পুবের কলম প্রতিবেদক: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। জিত হল সেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রীরই। নিজে উপলব্ধি করেছিলেন কোভিডের আবহে মানুষের মধ্যে বেড়ে যাচ্ছে সামাজিক ভেদাভেদ। দীর্ঘদিনের চেনাপরিচিত মানুষগুলিই হয়ে যাচ্ছেন চূড়ান্ত অপরিচিত। প্রতিবেশী হোক কী আত্মীয়স্বজন, সবাই মুখ ফেরাচ্ছেন যেই শুনছেন ঘরে হানা দিয়েছে কোভিড। বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া, বাড়ির দরজায় বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে দেওয়া। জল নেওয়া বন্ধ করে দেওয়া এবং মারধর, এসবেই সাক্ষী থেকেছে কলকাতা সহ রাজ্য। আর এসব দেখেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উপলব্ধি করেছিলেন, কোভিডকালে ‘সামাজিক দূরত্ব’ কথাটি ব্যবহার সঠিক নয়, ব্যবহার করতে হবে ‘শারীরিক দূরত্ব’। সেই মতো নিজের অভিমত দিয়ে তিনি চিঠি পাঠিয়েছিলেন কেন্দ্রে মোদি সরকারকে। এবার সেই দাবিই প্রধানমন্ত্রী নিজে মেনে নিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রক জানিয়েছে এবার থেকে আর ‘সামাজিক দূরত্ব’ কথাটি ব্যবহার করা হবে না– পরিবর্তে ব্যবহ*ত হবে ‘শারীরিক দূরত্ব’।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, কোভিডকালে বিধি মানার ক্ষেত্রে ‘সামাজিক দূরত্ব’ শধদুটি ব্যবহার করা শুরু হয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে সেই শধজোড়ার অন্তর্নিহিত অর্থ বুঝতেই পারছেন না একশ্রেনীর মানুষ। তাঁরা কোভিড আক্রান্তদের সামাজিক ভাবে বয়কট করার পাশাপাশি তাঁদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে চলেছেন ক্রমাগত। একই সঙ্গে মারধর,ঘর থেকে বার করে দেওয়া, জল সংগ্রহে বাধা দেওয়া এসবই তারা চালিয়ে গিয়েছে কোভিড আক্রান্তদের সঙ্গে। দেশের মধ্যে একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই প্রথম এই শধজোড়া নিয়ে আপত্তি জানান। পাশাপাশি তাঁর দলের রাজ্যসভার সাংসদ তথা ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ডঃ শান্তনু সেন বিষয়টি রাজ্যসভাতেও তোলেন। এরপরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে বিষয়টি দেখতে বলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রককে। সেই সুবাদেই এবার থেকে ‘সামাজিক দূরত্ব’ শধ জোড়ার পরিবর্তে ‘শারীরিক দূরত্ব’ শধজোড়া কোভিড বিধির ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only