সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০

চলুন মাস্টার মশাই ঘুরি বাড়ি বাড়ি



দেবশ্রী মজুমদার, বোলপুর, ৩০ নভেম্বর: "চলুন মাস্টার মশাই ঘুরি বাড়ি বাড়ি" এই প্রকল্পের আওতায় মাস্টার মশাইরা এবার ঘুরছেন বাড়ি বাড়ি। সোমবার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান প্রলয় নায়েক ও জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের নেতৃত্ত্বে মাস্টার মশাইরা বোলপুরের মুলুক পঞ্চায়েতের নামো আদিবাসী পাড়ায় ঘুরলেন। 

অনুব্রত মণ্ডল বললেন, সরকারের উন্নয়নের খতিয়ান, বহু প্রকল্পের কথা জানাতে বাড়ি বাড়ি ঘুরলেন মাস্টার মশাইরা। 

প্রলয় নায়েক বলেন, স্কুল বন্ধ। তাই পড়াশোনার খোঁজ খবর নিতে মাস্টার মশাইরা বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন। তাদের বই, খাতা ও স্টাডি ম্যাটিরিয়াল পৌঁছে দিতে মাস্টার মশাইরা বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন। তাই তো এই প্রকল্পের নাম, ' চলুন মাস্টার মশাই, ঘুরি বাড়ি বাড়ি।' এছাড়াও কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, যুবশ্রী, প্রতিবন্ধীদের জন্য মানবিক প্রকল্পের মত বহু  সরকারী প্রকল্প আছে, তার সুফল জানাতে মাস্টার মশাইরা বীরভূমের ১৬৭ পঞ্চায়েত ও পৌরসভা এলাকায় ঘুরছেন।  

নামো আদিবাসী পাড়ার আদিবাসীরা কেমন আছেন? তার উত্তরে অনুব্রত বলেন, আপনারাই জিজ্ঞেস করে দেখুন। দু'একজন আদিবাসী তার উত্তরে জানালেন, ওই তো ঘর পেয়েছি। রেশনে বিনি পয়সায় চাল, আটা, গম পাই। রাস্তা ঘাট ও জল হয়েছে। এইটুকুই। তবে আগের থেকে বেশি। এদিন কি দেওয়া হলো? - জিজ্ঞেস করতেই জানান দিলেন এক আদিবাসী-- বইপত্তর, খাতা আর একটি ব্যাগ। 

উল্লেখ্য, একুশের নির্বাচনের আগে জনতা জনার্দনের মন বুঝতে, সরকার দুয়ারে দুয়ারে প্রকল্প আগেই চালু করেছেন। এবার চালু হলো, 'চলুন মাস্টার মশাই, ঘুরি বাড়ি বাড়ি'। একুশের নির্বাচন যে বেশ কঠিন, তা স্বীকার করেছেন প্রলয় বাবুরা। এদিকে, স্কুল বন্ধ থাকলেও, মাস্টার মশাইরা বেতন ঠিক ঠাক পাচ্ছেন। এবার সেই সুবাদেই কী নির্বাচনকে পাখির চোখ করে  বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন মাস্টার মশাইরা। যার ফলে, একুশের নির্বাচনে তার একটা প্রভাব পড়বে। এমনটাই আশা করছে দল।  কারণ, মাস্টার মশাইরা কিছু দেখেন না, তা নয়।  সব কিছুই দেখেন। জনমানসে এমন ধারণা প্রচলিত।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only