শুক্রবার, ৬ নভেম্বর, ২০২০

বিহার ভোটের ফলের দিনও মুক্তি পাচ্ছেন না লালু

 


রাঁচি,৬ নভেম্বর:বিহারে ভোটের ফলপ্রকাশের দিন ছেলের পাশে থাকতে পারবেন না বাবা। ১০ নভেম্বর জেলেই থাকতে হবে আরজেডি-সুপ্রিমো লালু প্রসাদ যাদবকে। দুমকা ট্রেজারি মামলার শুনানির দিন ৯ নভেম্বর। যা পিছিয়ে দিল ঝাড়খন্ড আদালত। শুক্রবার আদালত জানিয়ে দেয়, ৯ তারিখের বদলে মামলার শুনানি হবে ২৭ নভেম্বর।

পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন লালু প্রসাদ যাদব। যদিও শারীরিক অসুস্থতার কারণে জেলে না থেকে ঝাড়খন্ডের রাজেন্দ্র মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি তিনি। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারির ২টি মামলায় তিনি জামিন পেয়ে গেছেন। কিন্তু জেল থেকে মুক্তি পেতে হলে দুমকা ট্রেজারি মামলাতেও জামিন পেতে হবে লালুকে। এই মামলার শুনানি ছিল ৯ নভেম্বর। যা পিছিয়ে হল ২৭ নভেম্বর।

লালুর পরিবারের সদস্য ও দলের নেতাকর্মীদের আশা ছিল ৯ তারিখ লালু জামিন পাবেন। কিন্তু সেগুড়ে বালি। বিহারে এটাই ছিল প্রথম নির্বাচন যেখানে লালু উপস্থিত নেই। তবে ভোট প্রচারের ময়দানে তিনি শারীরিকভাবে উপস্থিত না থাকলেও আলোচনায় ছিলেন।জেডিইউ প্রধান নীতীশ কুমার নাম না করেই একাধিকবার ভোট প্রচারে গিয়ে কটাক্ষ করেছেন লালুকে। বিজেপির স্টার ক্যাম্পেনার নরেন্দ্র মোদিও লালুর রাজত্বকে জঙ্গলরাজ বলে কটাক্ষ করেছেন। পাল্টা জবাব দিয়েছেন লালুপুত্র তেজস্বী যাদবও। তাই সব মিলিয়ে বিহারের নির্বাচনে তিনি না থাকলেও যেন ছিলেন। প্রচারে বেরিয়ে তেজস্বী বহুবার বলেছিলেন, ১০ তারিখ তাঁর বাবা জেল থেকে ফিরে আসবেন। আর তিনি নীতীশ কুমারকে বিদায় সংবর্ধনা জানাবেন। কিন্তু ঝাড়খন্ড হাইকোর্টের রায়ে ফলপ্রকাশের আগে দিন জেলেই কাটাতে হবে প্রবীণ এই রাজনীতিককে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only