রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০

লোকাল ট্রেন চলবে কিনা তা নিয়ে সোমবার বিকেলে নবান্নে বৈঠক



পুবের কলম প্রতিবেদকঃরাজ্যে লোকাল ট্রেন চালু হবে কিনা তা নিয়ে সোমবার বিকেলে নবান্নে রাজ্যের সঙ্গে রেলওয়ের আধিকারিকরা বৈঠক করবেন। সেখানেই ঠিক হতে চলেছে রেলকর্মীরা ছাড়াও আমজনতা এবার থেকে পূর্ব ও দক্ষিন পূর্ব রেলের লোকাল ট্রেনে সফর করতে পারবেন কী পারবেন না। মুখ্যসচিবের নেতৃত্বেই নবান্নে হবে এই বৈঠক হবে বলে খবর। সেখানে মুখ্যসচিব ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী, পরিবহণ সচিব প্রভাত কুমার মিশ্র , রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র ও কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা প্রমুখ। উল্লেখ্য, শনিবারই পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার সুনীল শর্মাকে চিঠি দিয়ে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। স্পেশাল ট্রেনে চাপার চেষ্টায় বাড়ছে নিত্যদিনের অশান্তি। নানা দিক থেকে লোকাল ট্রেন চালানো দাবিও উঠছে। এই পরিস্থিতিতে লোকাল চালানোর ব্যাপারে আলোচনায় বসতে চেয়ে শনিবার পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার সুনীত শর্মাকে চিঠি দেন স্বরাষ্ট্র সচিব। 

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার বিকাল ৫ টায় রেল ও রাজ্যের বৈঠক বসতে চলেছে। রাজ্যের তরফে বৈঠকে মুখ্য ভূমিকা পালন করবেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দোপাধ্যায়। রেলের তরফে বৈঠকে হাজির থাকবেন থাকবেন পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব রেলের আধিকারিকরা। বৈঠকে লোকাল ট্রেন নিয়ে জট কাটতে পারে বলে ইঙ্গিত মিলেছে রেলের তরফেও। বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা, দুই রেলের এজিএম, চিফ অপারেশন ম্যানেজার, চিফ সিকিউরিটি কমিশনার সহ রেল আধিকারিকদের। অপরদিকে রাজ্য পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকরাও এই বৈঠকে থাকতে পারেন। সূত্রের খবর, মুম্বইয়ের ধাঁচে শুধু জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা, নাকি সব যাত্রীরা লোকাল ট্রেনে উঠতে পারবেন মূলত তা নিয়েই আলোচনা হবে। একই সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হবে। কত সংখ্যক ট্রেন চালানো হবে তাও আলোচনায় উঠে আসবে। রেল সূত্রে খবর, তারা যাবতীয় প্রস্তুতি সেরেই বৈঠকে যোগ দেবে।

শনিবার রাতে স্বরাষ্ট্র সচিব  যে চিঠি লেখেন তাতে একদিকে তিনি যেমন ক্ষোভের সঙ্গে লিখেছেন, একইসঙ্গে কেন লোকাল ট্রেন চালু জরুরী তাও ব্যাখ্যা করেছেন। তাঁর মতে, শুধুমাত্র রেলের কর্মীদের জন্য যে স্টাফ ট্রেন চালানো হচ্ছে, সেখানে সাধারণ মানুষ উঠতে পারছেন না। উল্টে রেলের নিজস্ব সুরক্ষা বলের কর্মীরা দুর্ব্যবহার করছেন। এটা মোটেও কাম্য নয়। পাশাপাশি মেট্রো রেল পরিষেবা চালুর ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের সহযোগিতার কথাও তিনি মনে করিয়েছেন ওই চিঠিতে। সেই সঙ্গে চিঠিতে এই বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে, সকাল ও বিকেলের দিকে যদি সাধারণ যাত্রীদের জন্য কিছু ট্রেন পরিষেবা চালু করা যায়, সেক্ষেত্রেও রাজ্য সরকার প্রয়োজনীয় সাহায্য করবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোভিড প্রোটোকল অনুযায়ী যাত্রী সুরক্ষা সুনিশ্চিত করেই লোকাল ট্রেন চালানোর পক্ষে রাজ্য সরকার। তবে কীভাবে সেই ট্রেন চালানো হবে, সে ব্যাপারে সোমবারের বৈঠকেই চূড়ান্ত হবে।লোকাল ট্রেন চলবে কিনা তা নিয়ে সোমবার বিকেলে নবান্নে বৈঠক

রাজ্যে লোকাল ট্রেন চালু হবে কিনা তা নিয়ে সোমবার বিকেলে নবান্নে রাজ্যের সঙ্গে রেলওয়ের আধিকারিকরা বৈঠক করবেন। সেখানেই ঠিক হতে চলেছে রেলকর্মীরা ছাড়াও আমজনতা এবার থেকে পূর্ব ও দক্ষিন পূর্ব রেলের লোকাল ট্রেনে সফর করতে পারবেন কী পারবেন না। মুখ্যসচিবের নেতৃত্বেই নবান্নে হবে এই বৈঠক হবে বলে খবর। সেখানে মুখ্যসচিব ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী, পরিবহণ সচিব প্রভাত কুমার মিশ্র , রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র ও কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা প্রমুখ। উল্লেখ্য, শনিবারই পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার সুনীল শর্মাকে চিঠি দিয়ে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। স্পেশাল ট্রেনে চাপার চেষ্টায় বাড়ছে নিত্যদিনের অশান্তি। নানা দিক থেকে লোকাল ট্রেন চালানো দাবিও উঠছে। এই পরিস্থিতিতে লোকাল চালানোর ব্যাপারে আলোচনায় বসতে চেয়ে শনিবার পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার সুনীত শর্মাকে চিঠি দেন স্বরাষ্ট্র সচিব। 

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার বিকাল ৫ টায় রেল ও রাজ্যের বৈঠক বসতে চলেছে। রাজ্যের তরফে বৈঠকে মুখ্য ভূমিকা পালন করবেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দোপাধ্যায়। রেলের তরফে বৈঠকে হাজির থাকবেন থাকবেন পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব রেলের আধিকারিকরা। বৈঠকে লোকাল ট্রেন নিয়ে জট কাটতে পারে বলে ইঙ্গিত মিলেছে রেলের তরফেও। বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা, দুই রেলের এজিএম, চিফ অপারেশন ম্যানেজার, চিফ সিকিউরিটি কমিশনার সহ রেল আধিকারিকদের। অপরদিকে রাজ্য পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকরাও এই বৈঠকে থাকতে পারেন। সূত্রের খবর, মুম্বইয়ের ধাঁচে শুধু জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা, নাকি সব যাত্রীরা লোকাল ট্রেনে উঠতে পারবেন মূলত তা নিয়েই আলোচনা হবে। একই সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হবে। কত সংখ্যক ট্রেন চালানো হবে তাও আলোচনায় উঠে আসবে। রেল সূত্রে খবর, তারা যাবতীয় প্রস্তুতি সেরেই বৈঠকে যোগ দেবে।

শনিবার রাতে স্বরাষ্ট্র সচিব  যে চিঠি লেখেন তাতে একদিকে তিনি যেমন ক্ষোভের সঙ্গে লিখেছেন, একইসঙ্গে কেন লোকাল ট্রেন চালু জরুরী তাও ব্যাখ্যা করেছেন। তাঁর মতে, শুধুমাত্র রেলের কর্মীদের জন্য যে স্টাফ ট্রেন চালানো হচ্ছে, সেখানে সাধারণ মানুষ উঠতে পারছেন না। উল্টে রেলের নিজস্ব সুরক্ষা বলের কর্মীরা দুর্ব্যবহার করছেন। এটা মোটেও কাম্য নয়। পাশাপাশি মেট্রো রেল পরিষেবা চালুর ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের সহযোগিতার কথাও তিনি মনে করিয়েছেন ওই চিঠিতে। সেই সঙ্গে চিঠিতে এই বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে, সকাল ও বিকেলের দিকে যদি সাধারণ যাত্রীদের জন্য কিছু ট্রেন পরিষেবা চালু করা যায়, সেক্ষেত্রেও রাজ্য সরকার প্রয়োজনীয় সাহায্য করবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোভিড প্রোটোকল অনুযায়ী যাত্রী সুরক্ষা সুনিশ্চিত করেই লোকাল ট্রেন চালানোর পক্ষে রাজ্য সরকার। তবে কীভাবে সেই ট্রেন চালানো হবে, সে ব্যাপারে সোমবারের বৈঠকেই চূড়ান্ত হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only