রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০২০

নির্ধারিত সূচী অনুসারেই শিক্ষক নিয়োগ ও বদলি হবে: মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগ ও বদলির ক্ষেত্রে কোনও ‘স্টে অর্ডার’ নেই। সুপ্রিম কোর্ট মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের কাছে নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চাওয়া প্রসঙ্গে সাফ জানিয়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান আইএএস গোলাম আলি আনসারি। শনিবার তিনি বলেন, মাদ্রাসায় নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চেয়েছে। কিন্তু কী জানতে চাওয়া হয়েছে, তা পরিষ্কার করেনি সর্বোচ্চ আদালত। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশানুসারে কমিশন তার কাজকর্ম অব্যাহত রেখেছে, সেই বিষয়টিও সর্বোচ্চ আদালতে জানানো হয়েছে, আগামীতেও জানানো হবে বলে কমিশন জানিয়েছে। তবে নির্ধারিত বিজ্ঞপ্তি অনুসারেই শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া ও বদলি শুরু হবে বলে জানান কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম আলি।

আগামী ২৮ নভেম্বর পাশ কোর্সের শিক্ষকদের বদলির কাউন্সেলিং শুরু হবে। চলবে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। পোস্ট গ্রাজুয়েট এবং অনার্স কোর্সের শিক্ষকদের বদলির কাউন্সেলিং ৭ ডিসেম্বরের পর শুরু হবে, শেষ হবে ২৮ ডিসেম্বর। 

 এদিকে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার দিনক্ষণও ঘোষণা করেছে। ২১৯টি শূণ্যপদের জন্য পরীক্ষা হবে ১০ জানুয়ারি। কর্মশিক্ষা- শারীর শিক্ষার ২০০টি শূণ্যপদের পরীক্ষা হবে ১৭ জানুয়ারি। 


 মাদ্রাসা শিক্ষক সংগঠনগুলির বক্তব্য, এক শ্রেণির মানুষ বিভ্রান্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এ দিকে ভূতুড়ে শিক্ষকদের বিষয়টি খতিয়ে দেখার আর্জিও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরে দেওয়া হয়েছে। বেঙ্গল মাদ্রাসা এডুকেশন ফোরামের রাজ্য সভাপতি ইসরারুল হক মণ্ডল বলেন, কমিশনের কাজকে ব্যহত করার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসারেই নিয়োগ প্রক্রিয়া চালিয়ে যাবে কমিশন। শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সমিতির মুূপাত্র সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, মাদ্রাসাগুলিকে বাঁচিয়ে রাতে শিক্ষক নিয়োগ জরুরি। তবে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে কমিশনই শিক্ষক নিয়োগ করবে, যা আদালতেরও নির্দেশ রয়েছে।  তৃণমূল মাদ্রাসা টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের রাজ্য সভাপতি এ কে এম ফারহাদ বলেন, শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে কমিশন প্রক্রিয়া শুরু করেছে। কমিশনের মাধ্যমেই শিক্ষক নিয়োগ অব্যাহত থাকবে আদালতের নির্দেশিকা মেনেই। বিভ্রান্তিকর কিছু মানুষ নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধি করতে চাইছে। শিক্ষক নেতা আবু সুফিয়ান পাইক বলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশানুসারেই শিক্ষক নিয়োগ করা হচ্ছে। বদলি ও প্রধানশিক্ষক নিয়োগেও এক শ্রেণি বাধা দিতে চাইছে। তা ফলপ্রসূ হবে না বলে জানান তিনি। স্টে অর্ডার হয়নি। কমিশন বৈধ, সেই অনুসারে কমিশন বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। বদলি ও শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে কোনও আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only