রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০

টেনে চড়ার দাবিতে খণ্ডযুদ্ধ রেল পুলিশের সঙ্গে সাধারণ যাত্রীদের


পুবের কলম প্রতিবেদক:­ স্টাফ স্পেশ্যাল ট্রেনে চড়ার দাবিতে শনিবার রণক্ষেত্রের চেহারা নিল হাওড়া স্টেশন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে লাঠিচার্জ করে রেল পুলিশ। এই উত্তেজনা চলাকালীন বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হয়েছেন। আবার একাধিক যাত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। অন্যদিকে রেল পুলিশের কাছ থেকে লাঠি কেড়ে যাত্রীদের বিরুদ্ধে পালটা মারধর করার অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে এদিন ঘটনার পর রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান রেল পরিষেবা সংক্রান্ত বিষয়ে ইতিমধ্যেই রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। রাজ্য রেলকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে কোভিড প্রটোকল মেনে যাতে কয়েকজোড়া ট্রেন অফিস টাইমে চালানো হয়। মুখ্যসচিব উল্লেখ করেন রাজ্যের প্রতিনিধিরা রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ঠিক করাবে কিভাবে ট্রেন চালানো হবে।   

উল্লেখ্য এর আগে সাধারণ যাত্রীদের জন্য লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করা নিয়ে যাত্রীদের পাশাপাশি সরব হয়েছে একাধিক রাজনৈতিক দল। 


রেল সূত্রে জানা গিয়েছে শনিবার সন্ধ্যায় রেলের কর্মীদের জন্য স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে চড়ার দাবিতে অসংখ্য যাত্রী হাওড়া স্টেশনে হাজির হন। এই ট্রেনে শুধুমাত্র রেলের কর্মীদের যাত্রা করার অনুমতি থাকলেও বর্ধমান,ব্যান্ডেল সহ একাধিক এলাকার সাধারণ যাত্রীরাও প্রতিদিন এই ট্রেনগুলিতে যাতায়াত করছিলেন। কিন্তু সোনারপুরের ঘটনার পরেই আরও কড়া হয় আরপিএফ। সাধারণ যাত্রীদের স্পেশাল ট্রেনে উঠতে বাধা দেয় রেল পুলিশ। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। স্পেশাল ট্রেনে যাতায়াতের জন্য শুক্রবার থেকেই জোর দাবি তোলেন সাধারণ যাত্রীরা। ওইদিনও তাঁরা বিক্ষোভ করেন। পরে রেল পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। কিন্তু শনিবার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। তাদের সাধারণ যাত্রীদের স্টেশনের ভিতরে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। ট্রেনে চড়ার জন্য শয়ে শয়ে হাজির হওয়া যাত্রীরা এ দিন জোর করে স্টেশনের ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করেন। তারা গেট ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। রেল পুলিশের লাঠির আঘাতে একাধিক মহিলা যাত্রীও আহত হয়েছেন। যাত্রীদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী। 

সাধারণ যাত্রীদের অভিযোগ রোডসাইড স্টেশনগুলিতে সাধারণ যাত্রীদের ট্রেনে চড়ার বিষয়টি লঘু করা হলেও হাওড়া, শিয়ালদা স্টেশনে সাধারণ যাত্রীদের প্রবেশাধিকার দেওয়া হয়নি। ফলে যাত্রীরা লিলুয়া,বেলুড়,বিধাননগর পার্কসার্কাসে ট্রেনে এসে নেমে ঘুরপথে কলকাতা যাতায়াত করেন। যাত্রীদের দাবী হাওড়া,শিয়ালদা থেকে তাদের ট্রেনে চড়তে দিতে হবে। সড়কপথে দীর্ঘ সময় ও খরচে তাঁরা পেরে উঠছেন না। এছাড়াও তাঁদের অভিযোগ রেলের যাত্রীরা প্রচুর বেতন পাচ্ছেন তাও তাঁরা ট্রেনে যাতায়াত করতে পারছেন। সেখানে সাধারণ যাত্রীদের কেন ট্রেনে চড়তে দেওয়া হবে না? রেল সূত্রে জানা গিয়েছে এ দিন স্টেশনের গেটের তালা ভেঙে দেন যাত্রীরা। এমনকী এক মহিলা রেল পুলিশকে ভিড়ের মধ্যে টেনে মারধরও করা হয়। যদিও যাত্রীদের অভিযোগ বিনা প্ররোচনা তাদের ওপর লাঠিচার্জ করা হয়েছে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only