শুক্রবার, ৬ নভেম্বর, ২০২০

কেন্দ্রের গড়িমসিতেই কী তিস্তার দ্বিতীয় সেতু নির্মাণ বিশবাঁও জলে ?পড়ুন বিস্তারিত



ডুয়ার্স,রুবাইয়া জুঁই:আজও ভগ্নদশায় দাঁড়িয়ে স্বাধীনতারও আগে তৈরি প্রায় ৮৩ বছরের বেশি পুরনো কালিম্পং জেলার ঐতিহ্যবাহী  সেবক করোনেশন সেতু। ডুয়ার্সের সঙ্গে শিলিগুড়ির যোগাযোগের অন্যতম  মাধ্যম হল এই সেবক করোনেশন সেতু।প্রতিদিন হাজার হাজার ছোট বড় যানবাহন চলাচল করে এই সেতুটির উপর দিয়েই।উল্লেখ্য ডুয়ার্সের সাথে শিলিগুড়ির যোগাযোগ সহজ করতে ব্রিটিশ আমলে ১৯৩৭ সালে  রাজা ষষ্ঠ জর্জ রানি এলিজাবেথের করোনেশন উপলক্ষে শুরু করা এই ব্রীজটির নির্মাণকাজ এবং তা শেষ হয় ১৯৪১ সালে। ব্রীজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন তদানীন্তন বাংলার গভর্ণর জন অ্যান্ডারসন। ব্রীজের নকশা করেছিলেন দার্জিলিঙের পূর্ত বিভাগের শেষ ব্রিটিশ এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার জন চেম্বারস। আর নির্মাণকাজে ছিলেন মুম্বাইয়ের মেসার্স জি সি গ্যামন। কিন্তু ২০১১ সালের ভূমিকম্পে সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হয় এই ঐতিহাসিক  সেতুটি এরপর সরকারিভাবে এই সেতুর উপর দিয়ে ভারী গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। কিন্তু নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই চলছে দ্বিগুণ ভারী গাড়ি।অন্যদিকে বর্ষাকালে করোনেশন সেতুর ভিত তিস্তার ভাঙনের জন্য ক্রমশ দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। এর জেরে তরাই ডুয়ার্সের মানুষের কপালে এখন চিন্তার ভাঁজ।  কোনও ভাবে এই সেতু আরও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হলে শিলিগুড়ির সাথে ডুয়ার্সের যোগাযোগ কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। এমনকি ভুটানের সাথেও যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে।সেবকে বিকল্প সেতুর কথা বলা হলেও এখনও সেই সেতুর কাজ শুরু না হওয়ায় উদ্বেগ বাড়ছে দিন দিন। অন্যদিকে সেবকে ধসের কারণেও প্রায়ই ডুয়ার্সের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে শিলিগুড়ির। তখন গজোলডোবা হয়ে ঘুরপথে আসতে হয় ডুয়ার্সের বাসিন্দাদের। এর কারণেই দ্বিতীয় সেতুটি অত্যন্ত প্রয়োজন। কিন্তু  গত ছয় বছর ধরে রাজ্য সরকার দ্বিতীয় সেতু নির্মাণের জন্য বহুবার কেন্দ্রকে চিঠি দেওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্রের গড়িমসিতেই তা এগোয়না বলে অভিযোগ চলতি সপ্তাহের তারিখ  রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন যে, রাজ্য সরকার ধারাবাহিকভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দ্বিতীয় বিকল্প সেতু নির্মাণের। ওই সেতুর ওপর দিয়ে যান চলাচলে যেকোনো সময় বড়সড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।অন্যদিকে পূর্তমন্ত্রীর দেওয়া তথ্যে দেখা যায় যে রাজ্য সরকার ২০১৪ সাল থেকে সেতু নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু করেছিল।কিন্তু এনওসি নিয়ে নানান টালবাহানা করছে কেন্দ্র।এমনকি এই নিয়ে কয়েকবার বৈঠকও হয়। রাজ্যের অভিযোগ নয়া সেতু বানানোর জন্যে জায়গা ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করা হয়ে গেছে। কিন্তু কেন্দ্রের অসহযোগিতার কারণে শুরু করা যাচ্ছে না কাজ। এরই মধ্যে উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে রাজ্যপাল সেবক ব্রিজ নিয়ে একাধিক প্রশ্ন তোলেন। তারই জবাব দিতে গিয়ে পূর্ত মন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস জানিয়েছেন, "সমস্ত তথ্য জেনে মন্তব্য করা উচিত" রাজ্যের অভিযোগ এই বিষয়ে এক দফা কাজও করেনি কেন্দ্র। অন্যদিকে নয়া সেবক ব্রিজের পক্ষে ডুয়ার্সে তৈরি হয়েছে, 'ডুয়ার্স ফোরাম ফর সোশ্যাল রির্ফমস' নামে একটি মঞ্চ। যেখানে ডুয়ার্সের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা যেমন আছেন তেমনি আছে সাধারণ মানুষ। এই মঞ্চ বিভিন্নভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে দ্বিতীয় সেতুর দাবিতে।অরাজনৈতিক এই সংগঠনের বক্তব্য, গত কয়েক বছর ধরেই কেন্দ্র বা রাজ্য একাধিক সময় এই সেতু নিয়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবার সেতু বানানোর চূড়ান্ত কাজ করা হোক।ইতিমধ্যেই দ্বিতীয় সেবক সেতু চেয়ে সরব হয়েছেন পদ্মশ্রী প্রাপক করিমুল হক। তিনি জানিয়েছেন, "আমার শরীর যতদিন চলবে ততদিন এই দাবিতে সরব থাকব। দেশের বিভিন্ন জায়গায় নানা সেতু বানানো হচ্ছে। তাহলে ডুয়ার্সের মানুষের জন্য কেন সেতু হবে না"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only