রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০

মনের মনিকোঠায় রয়ে যাবেন কোনির শিক্ষাগুরু ক্ষিতীশ



পুবের কলম বিশেষ প্রতিবেদনঃ 'ফাইট কোনি ফাইট', বাঙালির হৃদয়ে এই তিনটি শব্দ দারুণভাবে জুড়ে রয়েছে। কোনি সিনেমায় সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের কণ্ঠে এই তিনটি শব্দ একজন ক্রীড়াবিদকে ব্যর্থতার মায়াজাল কাটিয়ে কীভাবে সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছে দিতে পারে তা দেখেছে বাঙালি। হয়তো সেটি সিনেমার চরিত্র, কিন্তু বাঙালির খেলাধুলায় সেটি একটি অনন্য উদাহরণ রয়েছে। সিনেমার প্রেক্ষাপটও সাঁতারু কে কেন্দ্র করে। অনামী এক সাঁতারু, যে কিনা বর্ণময় জগতে একেবারে অচল, অথচ প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও তার দাম পায় না, সেই 'কোনি' কে সাফল্যের দরজায় পৌঁছে দেওয়া কোচ ক্ষিতীশ (সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়) ক্রীড়া জগতে একটা বার্তা দিয়েছিলেন, অনেকটা মাকড়সার গল্পের মত। বারবার সাফল্যের কাছে গিয়েও ব্যর্থ হওয়া, অবশেষে সাফল্যের শিখরে ওঠা। যে সাফল্য কোনির মত সাঁতারুর মধ্যে দিয়ে সারা সমাজের কাছে বার্তা পৌঁছে দিয়েছিল, পরিশ্রম আর অধ্যাবসায়ের কোনও বিকল্প হয় না। সেই কোচ ক্ষিতীশ আর নেই। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রয়াণে বারবার করে যেন তার সেই কোনিকে বলা 'পুশ, পুল, রিকভারি' শব্দগুলি  ভেসে উঠছে চোখের কোনে। সত্যজিতের অপু কিংবা ফেলুদা যেমন আজও মনের মনিকোঠায় রয়েছেন, তেমনি বাংলার ক্রীড়াজগত যতদিন থাকবে কোনির শিক্ষাগুরু ও রয়ে যাবেন বাঙালির মননে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only