বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০

বাবা জেলে মা বেপাত্তা, কনকনে ঠাণ্ডায় অঙ্কিতের ঠিকানা ছিল ফুটপাথ




লখনউ, ১৬ নভেম্বরঃ উত্তপ্রদেশের মুজফফরনগরে একটি মনখারাপ করা  ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পরই প্রশাসন নড়েচড়ে বসে। ছবিটিতে দেখা  যায়, রাতে একটি বন্ধ দোকানের সামনে এক কিশোর এবং তার পোষ্য কুকুর কম্বল চাপা দিয়ে ঘুমোচ্ছে। এরপরই প্রশাসন বাচ্চাটির খোঁজ শুরু করে। 

একটি সর্বভারতীয় ইংরাজী দৈনিকের অনুসন্ধানে প্রকাশ, ন’বছরের এই কিশোরটির নাম অঙ্কিত। অঙ্কিতের বাবা  জেলে এবং মা তাকে ছেড়ে বেপাত্তা হয়েছে। 

অঙ্কিত এখনও পরিশ্রম করে নিজের এবং তার পোষ্য কুকুরটির পেট ভরায়। কুকুরটি অঙ্কিতের সঙ্গে সবসময় থাকে। অঙ্কিত কুকুরটির নাম রেখেছে  ‘ড্যানি’।

রিপোর্টে প্রকাশ,কিছুদিন আগে কোনও এক ব্যক্তি বন্ধ দোকানের বাইরে ফুটপাতে কম্বল চাপা দিয়ে ঘুমন্ত অঙ্কিত এবং তার কুকুরটির ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন। ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। এরপরই ইউপি প্রশাসন বাচ্চাটির খোঁজ শুরু করে। সোমবার সকালে পুলিশ বাচ্চাটির সন্ধান পায়। এসএসপি অভিষেক যাদবের নির্দেশে কিশোরটির সন্ধান করে পুলিশ। এবং বর্তমানে অঙ্কিত পুলিশের দেূভালেই আছে। অঙ্কিতকে জিজ্ঞাসাবাদ করে শুধু এটুকুই জানা গিয়েছে,তার বাবা এখন জেলে এবং মা তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছে। অঙ্কিত কখনও  বেলুন বিক্রি করে আবার কখনওবা চায়ের দোকানে কাজ করে তার এবং কুকুরটির পেট চালায় সে। এসএসপি যাদব জানান, অঙ্কিত যখন কাজ করত কুকুরটি দোকানের এক কোণে বসে থাকত। অঙ্কিত কখনও  বিনা পরিশ্রমে কিছু নিত না,এমনকী নিজের কুকুরের জন্য দুধও বিনামূল্যে কারোর থেকে নিত না। এসএসপি অভিষেক যাদব এক ইংরাজি দৈনিককে জানান ‘অঙ্কিতকে পুলিশের দেখভালে রাখা হয়েছে। আমরা ওর আত্মীয়স্বজনের খোঁজ  চালাচ্ছি। অঙ্কিতের ছবি সমস্ত পুলিশ থানায় পাঠানো হয়েছে এবং জেলা মহিলা ও শিশুকল্যাণ বিভাগকেও জানানো হয়েছে।’

এসএইচও অনিল কাপরওয়ান জানান,অঙ্কিত এক স্থানীয় মহিলা শীলা দেবীর কাছে থাকত। মহিলার ছেলে অঙ্কিতের পরিচিত।
এদিকে স্থানীয় পুলিশ স্কুল পরিচালন সমিতিকে অনুরোধ জানানোর পরে অঙ্কিতকে বিনামূল্যে পড়াশোনার সুযোগ দিতে রাজি হয়েছে।   

    


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only