মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০

ফাইবার যুক্ত খাবারই দিতে পারে আপনাকে অনেকাংশে সুরক্ষা

 



 বিশেষ প্রতিবেদনঃকোলেস্টেরল আসলে একটি রাসায়নিক যৌগ, যা আমাদের শরীরের কোষগুলি নির্মাণে অপরিহার্য। কিন্তু শরীরে এর মাত্রা বেশি হলে, হদযন্ত্র মস্তিষ্ক এবং কিডনির জন্য মারাত্মক। রোজকার খাদ্য তালিকাই আমাদের অতিরিক্ত কোলেস্টেরল জন্য দায়ী। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন এনেই কোলেস্টেরলকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। 

দিন শুরু করুন রসুন খেয়েঃ



এলডিএল বা খারাপ কোলেস্টেরল খুবই কার্যকরী রসুন। একটি গবেষণায় প্রকাশ,রসুন নিয়মিত খেলে এলডিএল স্তর ৯ শতাংশ কমাতে পারে। রোজ সকালে খালি পেটে রসুনের দুটি কোয়া চিপিটে খেলে খুবই উপকার পাওয়া যায়।

চা খাওয়ার আগে বাদাম খানঃ


বাদামে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা খারাপ কোলেস্টেরল কম করতে খুবই উপকারী। রাতে বাদাম জলে ভিজিয়ে সকালে চা খাওয়ার ২০ মিনিট আগে খাওয়া উচিত। জলে ভেজানো থাকলে বাদামে থাকা ফ্যাট কমে যায়। রোজ ৫-৬টা বাদাম খাওয়াই যথেষ্ট। সঙ্গে আূরোট খেলে আরও বেশি উপকার হবে। তবে কাজু বাদাম না খাওয়াই ভাল।

খাদ্যে বেশি পরিমাণ ফাইবার থাকা প্রয়োজনঃ



ব্রেকফাস্ট থেকে ডিনার পর্যন্ত ডায়েটে ফাইবার থাকা খুবই জরুরি। রোজ দু’বেলা খাওয়ার সময় স্যালাড খাওয়া খুবই উপকারী। স্যালাডে থাকা সমস্ত সবজি যেমন পেঁয়াজ, মুলো,গাজর, বিটে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। ওট্স,স্পাউট্স এবং মিষ্টি আলুও ফাইবার যুক্ত হয়। ব্রেকফাস্টে এগুলি খাওয়া খুবই প্রয়োজন। কমলালেবু,ন্যাশপাতি, পেঁপে চিকুর মতো ফলও ফাইবার যুক্ত। 

বাইরের খাবার এড়ানোঃ



 প্রধানত ভাজাভুজি এবং ক্রিম জাতীয় খাবার শরীরের পক্ষে খুবই হানিকারক। রাস্তার খাবারে এই ধরনের তেল বেশি বেশি ব্যবহার করা হয়। তাই বাইরের ডিপ ফ্রাইড খাবার অবশ্যই বর্জন করতে হবে।

বনস্পতি ডায়েটে রাখা জরুরিঃ



এই ধরনের প্রোটিন সাধারণত গাছপালা থেকে পাওয়া যায়। যেমন,ডাল,রাজমা,ছোলা,বাদাম,সোয়াবিন জাতীয় খাদ্যকে বনস্পতি প্রোটিন বলা হয়। এই খাবারগুলি খারাপ কোলেস্টেরল লেবেল দ্রুত কমাতে কার্যকরী এবং ভাল কোলেস্টেরল বাড়ায়। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only