রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২০

অমিত শাহের আগমনে খুশি,তবে বাউল শিল্পীর গলাই হতাশার সুর



দেবশ্রী মজুমদার, শান্তি নিকেতন‌: বাউল শিল্পী বাসুদেব দাসের গলায় ধরা পড়লো হতাশার সুর। তিনি বলেন,  ভেবেছিলাম, লক ডাউনে বাউলদের সমস্যার কথা তিনি নিজে থেকেই জিজ্ঞেস করবেন, কিন্তু সেই আক্ষেপ থেকেই গেল। তবে মোটের উপর তিনি খুশি। তিনি বলেন,  আমাদের বাড়িতে পায়ের ধুলো পড়েছে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর। তিনি তার বাড়িতে পাত পেড়ে খেয়েছেন শুধু নয়, আরও দুটি রুটি দাও বলে চেয়ে খেয়েছেন। একে বাউল, তার উপর দলিত সম্প্রদায়ের মানুষের বাস শ্যামবাটি সংলগ্ন সুভাষ পল্লীতে। আগে এই জায়গা ছিল বামের। পরে পাল্টে তৃণমূলের হয়। দলিত ও বাউল প্রীতির কথা তুলে ধরতেই তাঁর দলের এই প্রচেষ্টা। 


যদিও ভবা পাগলার সম্প্রীতির গান  " ওরে মানুষ! দেখবি যদি আল্লা ভগবান" গাওয়ার সুযোগ তিনি পান নি।  অন্যদিকে, অমিত শাহের আসার আগেই, ছাত্র ছাত্রী ঐক্যের দুই ছাত্র নেতা ফাল্গুনী পান ও সোমনাথ সাউকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় অমিত শাহের সফর নিয়ে প্রতিবাদ ও অমিত শাহের কুশপুতুল দাহ করার পর এই ঘটনা বলে অনেকের দাবি। 


রবিবার প্রায় এক ঘন্টা দেরি করে শান্তি নিকেতনের কুমির ডাঙার মাঠে কপ্টারে নামেন। তাঁকে অভ্যর্থনা জানান, তারপর, রবীন্দ্রভবনের উদয়ন গৃহে কবিগুরুর চেয়ারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন তিনি। তারপর উপাসনা গৃহে যান তিনি। সেখান থেকেই সঙ্গীত ভবনে যান তিনি। সেখানে বাউল সঙ্গীত দিয়ে শুরু। বাউল শিল্পী গাইলেন- রূপসাগরে মনের মানুষ কাঁচা সোনা। তারপর, রবীন্দ্র সংগীত "তিমির অবগুণ্ঠনে বদন তব ঢাকি"  সহ মোট ৫ টি নৃত্য সঙ্গীত পরিবেশন হয়। তা উপভোগ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। 


সেখান থেকে সোজা বাংলাদেশ ভবনে আধিকারিকদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের সামনে বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নোবেল কমিটি নোবেল সম্মান দিয়ে সম্মানিত করেন নি, তাঁরাই সম্মানিত হয়েছেন। তাছাড়াও দুটি দেশের জাতীয় সঙ্গীত রচনা করেন রবীন্দ্রনাথ। সেই প্রসঙ্গও তোলেন। তারপর ডাকবাংলো থেকে চৌমাথা পর্যন্ত বিশাল র ্যালীতে অংশ গ্রহণ করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only