বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

চালু হল ভাগীরথী এক্সপ্রেস! এবার সংবাদপত্র, রোগী এবং ছানা ব্যবসায়ীদের বাঁচাতে রাতের লালগোলা প্যাসেঞ্জার চালানোর দাবি উঠছে!

 


আবদুল ওদুদঃ৯ মাস পর চেনা ছন্দে ফিরছে শিয়ালদহ-লালগোলা রুটে ভাগীরথী এক্সপ্রেস। আর এই চেনা ছন্দ ফিরতেই ৯ মাস বাদ লালগোলায় শোনা যাবে ভাগীরথীর হুইসেল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্ধারিত সময়ে শিয়ালদহ থেকে লালগোলার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে রাত্রে লালগোলায় পৌঁছল। আর তাতেই খুশীর হাওয়া লালগোলা সহ গোটা মুর্শিদাবাদ জেলায়। এনআরসির প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে ২০১৯-এ নভেম্বর মাসে কয়েকটি ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দেয় কিছু দুষ্কৃতী। তার পরেই দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে। শেষপর্যন্ত ট্রেন চালু হলেও করোনা ভাইরাসের প্রভাব রুূতে আবার অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কয়েকটি লোকাল ট্রেন চালু হলেও ১ ডিসেম্বর থেকে রেল কর্তৃপক্ষ ভাগীরথী এক্সপ্রেস চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়। জেলায় মানুষের নানা অসুবিধা হওয়ায় চাকরিজীবী থেকে সাধারণ মানুষ সকলেই রেলের কাছে আবেদন জানায়। আর তার পরিপ্রেক্ষিতে শেষপর্যন্ত ভাগীরথী এক্সপ্রেস চালু হয়। তবে ভাগীরথী এক্সপ্রেস চালু হলেও হাজারদুয়ারি এক্সপ্রেস এবং ধনধান্য এক্সপ্রেস কবে চালু হবে সেই প্রতিক্ষায় রয়েছে ডেইলি প্যাসেঞ্জার থেকে সাধারণ মানুষ। ডাউন ভাগীরথী এক্সপ্রেস প্রতিদিন কৃষ্ণনগরে এসে প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকে। ফলে অফিসযাত্রী থেকে শুরু করে যাঁরা ডাক্তার দেখাতে কলকাতায় আসেন, তাঁদেরও নানা অসুবিধায় পড়তে হয়। এই সমস্যা যাতে সমাধান হয় তারও দাবি করছেন মুর্শিদাবাদ ডেইলি প্যাসেঞ্জার অ্যাসোসিয়েশনের জেলা সম্পাদক এ আর খান। 

মঙ্গলবার তিনি জানান, ভাগীরথী এক্সপ্রেস চালু হওয়ায় অনেকটা স্বাভাবিক হবে। তবে হাজারদুয়ারি এক্সপ্রেস, ধনধান্য এক্সপ্রেস ও শিয়ালদহ থেকে রাত ১১.৩০ মিনিটে যে ট্রেনটি ছাড়ে সেটি চলাচল শুরু হলে আরও উপকৃত হবে জেলার মানুষ। পর্যটকদের জন্য হাজারদুয়ারি এক্সপ্রেস এবং ধনধান্য এক্সপ্রেস ট্রেন দু’টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলেও রাত ১১.৩০ মিনিটের ট্রেনটি সবজি বিক্রেতা, ছানা বিক্রেতা এবং যারা জেলা থেকে কলকাতায় ডাক্তার দেখাতে এসে ফিরে যান তাঁদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণ মানুষ থেকে রোগীদের পরিবারের জন্য গভীর রাতের এই ট্রেনটি চালানো খুবই প্রয়োজন বলে মনে করেন এ আর খান। তিনি আরও বলেন, এই ট্রেনটিতে কলকাতা থেকে সমস্ত দৈনিক সংবাদপত্র নদিয়া এবং মুর্শিদাবাদ জেলায় পৌঁছয়। আর এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে কয়েক হাজার মানুষ। জড়িয়ে রয়েছেন হকার এবং এজেন্সিওয়ালারা। তাঁরা দাবি করছেন শিয়ালদহ থেকে রাতের ট্রেনটি চালু হলে অনেকটাই সুবিধা হবে তাদের। শিয়ালদহ ডিআরএমের কাছে আইএনটিইউসির পক্ষ থেকে সংবাদপত্র বিক্রেতারা এক স্মারকলিপি দেয়। কিন্তু ডিআরএম সময় না দেওয়ায় সেই আলোচনা এখনও হয়নি বলে জানান সংবাদপত্র বিক্রেতাদের অন্যতম মদন তরফদার। তিনি বলেন, ১১.৩০-এর লালগোলা প্যাসেঞ্জার না চলায় ভীষণ সমস্যার সম্মুূীন হতে হচ্ছে। তাই তারাও দাবি জানাচ্ছেন শীঘ্রই চালু হোক এই রুটের সমস্ত ট্রেন। 

অন্যদিকে, সারগাছি, বেলডাঙা, রেজিনগর, পলাশি থেকে প্রতিদিন  কু্যইন্টাল কু্যইন্টাল ছানা কলকাতায় আসে। কলকাতার এক বড় অংশের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীরা মুর্শিদাবাদের এবং নদিয়ার ছানার উপর নির্ভরশীল। কিন্তু রাতের ট্রেনটি না চলায় তাদেরও অসুবিধার সম্মুূীন হতে হচ্ছে। ডাউন এই ট্রেনেই ছানা কলকাতায় নিয়ে আসেন ব্যবসায়ীরা। ট্রেন না  ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে নদিয়া এবং মুর্শিদাবাদের ছানা ব্যবসায়ীরা। ছানা বিক্রেতা অসীম ঘোষ জানান, ৮-৯ মাস ধরে ট্রেন না চলায় প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে।  গাড়ি ভাড়া করে খুব বেশি ছানা কলকাতায় নিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। রাতের ট্রেনটি চালু হলে পুনরায় ছানা শিল্প আগের অবস্থায় ফিরে যাবে। তিনি রেল দফতরের কাছে দাবি জানান শীঘ্রই এই ট্রেনটি চালু করা হোক। জিয়াগঞ্জ থেকে সবজি নিয়ে আসেন কাঞ্চন মালাকার ট্রেন না চলায় তিনিও বাড়িতে বসে রয়েছেন। জিয়াগঞ্জ থেকে সবজি সহ অন্যান্য সামগ্রী নিয়ে এসে শিয়ালদহে বিক্রি করে রাতের ট্রেনে ফিরে যান জেলায়। ট্রেন না চলায় তিনিও সমস্যার সম্মুখীন।

শিয়ালদার ডিআরএম জানান, কিছু সমস্যার জন্য লালগোলা প্যাসেঞ্জার চালানো যাচ্ছে না। তবে রেল চেষ্টা করছে সাধারণ এবং ডেইলি প্যাসেঞ্জারদের কথা ভেবে দ্রুত চালানোর। তিনি আরও জানান হাজারদুয়ারী এবং ধনধান্য এক্সপ্রেস চালানোর ব্যাপারেও শীঘ্রই উদ্যোগ নেওয়া হবে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only