মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২০

দুই জন সিনিয়র সিটিজেনের পাশে প্রশাসন



দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট, ২২ ডিসেম্বর:  একে  সিনিয়র সিটিজেন। তারপর দুজনের বয়স অনেকটাই বেশি। তাই বার্ধক্য জনিত রোগে ভোগা শরীর। এই সময় বোধ হয় আপনজনের দুহাত বাড়ানো উষ্ণ সম্পর্কের বড়ো প্রয়োজন হয়। আর সেই কাজটিই করলো বীরভূমের তথা রামপুরহাটের পুলিশ প্রশাসন।

 মঙ্গলবার সকালেই শহরের দুই বরিষ্ঠ মহিলাদের মধ্যে একজন অসুস্থ মহিলার চিকিৎসার ব্যবস্থা করে মানবিকতার নজির গড়লো  রামপুরহাট থানার পুলিশ। ফের প্রমাণ হলো মানুষ, মানুষের জন্য। 

 জানা গেছে,  এক মায়ের পেটের  দুই বোনের মধ্যে বড় অবিবাহিত ইভা মল্লিক। আগে তিনি একাই থাকতেন। কিন্তু স্বামীর মৃত্যুর পর বোন প্রমিতা দাঁ মানসিক ভাবে খুব ভেঙে পড়েন। চলে আসেন তাঁর কাছে। তাঁরা দুজনেই থাকেন রামপুরহাটের নিশ্চিন্তপুরের সাঁই এপার্টমেন্টে। এই বয়সে নিকট আত্মীয় স্বজন কেউ না থাকায়, সোমবার রাত থেকে খুব অসহায় বোধ করতে থাকেন তাঁরা দুজনে। বয়সের ভারে শরীরও হার মানে। বোধ হয় মনও।  তাঁদের একজনের বয়স ৭৬। অন্যজনের বয়স ৬৭। এলাকা সূত্রে জানা গেছে,  স্বামী প্রয়াত হওয়ার পর মানসিক ভাবে একটু অসুস্থ হয়ে পড়েন ছোট বোন প্রমিতা দাঁ (৬৭)। এই বিষয়টি সোমবার সন্ধ্যায় নজরে আসে জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিংয়ের। তারপর রামপুরহাট থানার পুলিশ অসুস্থ বয়স্ক মহিলাকে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করে। তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করে স্থানীয় প্রশাসন।  শুধু তাই নয় বড় বোন ইভা মল্লিক (৭৬)  যাঁর বয়স যথেষ্ট বেশি তাঁকে মানসিক ভাবে সাহস যোগানোর পাশাপাশি, বাজার করে এ্যাপার্টমেন্টে পৌঁছে দেওয়ার কাজ করে রামপুরহাট থানার পুলিশ। রামপুরহাট থানার আই সি দেবাশীষ ঘোষ বলেন, ঘটনাটি এস পি সাহেবের নজরে আসে। তাঁর নির্দেশে আমরা ওই এ্যাপার্টমেন্টে অসুস্থ বয়স্কা মহিলাকে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করাই। তিনি বর্তমানে চিকিৎসায় খুব ভালো সাড়া দিচ্ছেন। সুস্থ বোধ করছেন। খুব ভালো চিকিৎসা হচ্ছে। আমরা উনার দিদি অর্থাৎ যাঁর বয়স আরও বেশি, তাঁকেও নজরে রেখেছি। তাঁর যেকোন অসুবিধা বা প্রয়োজনে আমরা সবসময় প্রস্তুত আছি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only