সোমবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০২০

অসমে বোড়ো কাউন্সিল ভোটে গেরুয়া দাপট

 


পুবের কলম প্রতিবেদকঃ বছর ঘুরলেই অসমে বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে বোড়োল্যান্ড টেরিটোরিয়াল কাউন্সিল (বিটিসি) নির্বাচনে বড় ধরনের স্বস্তিতে গেরুয়া শিবির। বোড়ো কাউন্সিলের ৪৬টি আসনের মধ্যে ৪০টি আসনে এবার নির্বাচন হয়েছে। কোনও দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে না পারলেও চমকপ্রদ ফল করেছে বিজেপি। যা নিয়ে আগামী বছর বিধানসভা ভোটেও ক্ষমতা দখলে রাখার বিষয়ে আশার আলো দেখতে শুরু করেছে তারা। যা নিয়ে খোদ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মন্ত্রী অমিত শাহ টু্ইট করে অসম বিজেপিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। 

বোড়োল্যান্ড চুক্তি স্বাক্ষর ও এনআরসি কার্যকরী হওয়ার পর অসমে এটাই ছিল প্রথম নির্বাচন। ৪০টি আসনের মধ্যে কোনও দলই ২১টি আসন দখল করে সংখ্যা গরিষ্ঠতায় পৌঁছতে না পারলেও বোড়ো কাউন্সিলের ক্ষমতা দখলে কোনও অসুবিধা হওয়ার কথা নয় গেরুয়া শিবিরের। এই ভোটে সবথেকে বড় দলের স্বীকৃতি পেয়েছে বিজেপির পুরনো জোটসঙ্গি ‘বোড়োল্যান্ড পিপলস ফ্রন্ট’ (বিপিএফ)। তারা দখল করেছে ১৭ আসন। ২০১৫ সালের তুলনায় তারা এবার ৩টি আসন কম পেয়েছে। ইউনাইটেড পিপলস পার্টি লিবারাল (ইউপিপিএল) ১২টি আসন পেয়েছে। চমকপ্রদ ফল করেছে বিজেপি। তারা এবার ৯টি আসন পেয়েছে। গতবার তারা বিপিএফের সঙ্গে জোট করে মাত্র ১টি আসন পেয়েছিল। আর এবার তারা এক লড়ে ৯টি আসন পেয়েছে। আর এই ফলাফলেই উজ্জীবিত গেরুয়া শিবির। এই নির্বাচনে সবথেকে বড় ধাক্কা খেয়েছে কংগ্রেস-এআইইউডিএফ জোট। তারা মাত্র ১টি আসন পেয়েছে। ফলে আগামী বিধানসভায় তারা জোট করবে কি না, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। জানা গিয়েছে, পুরনো জোটসঙ্গী বিপিএফের সঙ্গেই ফের জোট বেঁধে ক্ষমতা দখলের কথা ভাবছে বিজেপি। 

চলতি বছরের শুরুতেই বোড়ো সংগঠন ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট অফ বোড়োল্যান্ড (এনডিএফবি) ও অল বোড়ো স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সঙ্গে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর করে কেন্দ্র ও অসম সরকার। ফলে সিএএ ও শান্তি চুক্তির পর এই নির্বাচন ছিল বিজেপির কাছে কার্যত সেমিফাইনাল। আর এই সেমিফাইনাল ম্যাচে সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়েছে গেরুয়া ব্রিগেড। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only