মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০

ইন্দিরার জরুরি অবস্থা অসংবিধানিক? ৪৫ বছর পর মামলা আদালতে



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ৪৫ বছর আগে দেশে জরুরি অবস্থা জারি করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি। বিজেপি সহ কট্টর কংগ্রেস বিরোধীরা আজও সুযোগ পেলে জরুরি অবস্থা জারির প্রসঙ্গ তুলে কংগ্রেস নেতৃত্বকে খোঁচা দিতে ছাড়েন না। এবার জরুরি অবস্থা নিয়ে কংগ্রেস নেতৃত্বের অস্বস্তি বাড়াল দেশের শীর্ষ আদালত। ৪৫ বছর আগে দেশে যে জরুরি অবস্থা জারি হয়েছিল তা অসাংবিধানিক ঘোষণা করার দাবি জানিয়ে দায়ের করা মামলা শুনানির জন্য গ্রহণ করেছে শীর্ষ আদালত। বিচারপতি সঞ্জয় কিষাণ কাউলের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ বিষয়টি খতিয়ে দেখতে রাজি হয়েছে। ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে কেন্দ্রের জবাব তলব করে এক নোটিশও পাঠিয়েছেন বিচারপতিরা।

৪৫ বছর পরে জারি করা জরুরি অবস্থাকে অসাংবিধানিক ঘোষণার দাবিতে সম্প্রতি দেশের শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন বীণা সারিন নামে ৯৪ বছরের এক বৃদ্ধা। আবেদনে তিনি অভিযোগ করেছেন,‘জরুরি অবস্থার কারণে তাঁকে ও তাঁর স্বামীকে দেশত্যাগ করতে হয়েছিল। যেভাবে তখন প্রশাসন নির্বিচারে রাজনেতা থেকে শুরু করে আমজনতাকে গ্রেফতার করে জেলে পুরেছিল, তাতে তাঁরাও ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন। বিচার ব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় সুবিচারের আশা নষ্ট হয়েছিল।’ আর্থিক আর মানসিক কষ্টের যে যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়েছিল, তার জন্য ২৫ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতিপূরণও চেয়েছেন তিনি।

আবেদনকারীর আইনজীবী হরিশ সালভে আদালতে বলেন, ‘জরুরি অবস্থা ছিল সংবিধানের সঙ্গে প্রতারণা এবং সংবিধানের প্রতি চরম আঘাত। কেন-না, মাসের পর মাস মানুষ সংবিধান প্রদত্ত অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছিলেন। শক্তির অপপ্রয়োগ করে মানুষকে ১৯ মাস ধরে আটকে রাখা হয়েছিল। নবজাতক গণতন্ত্র ১৯ মাস ধরে নিজের অধিকারের অপব্যবহার করেছিল। তাই ইতিহাস সংশোধনের প্রয়োজনে জরুরি অবস্থা জারিকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করা উচিত।’

আবেদনকারীর আইনজীবীর দাবির প্রেক্ষিতে বিচারপতি সঞ্জয় কিষাণ কাউল বলেন,‘৪৫ বছর আগে যে ঘটনা ঘটেছিল, তা কতটা কাঙ্ক্ষিত ছিল,কতটা ন্যায্য ছিল,তা বিচার করা কঠিন। তবে এটা ঠিক যে সমস্ত জিনিস ঘটেছে,তাতে বলাই যেতে পারে, জরুরি অবস্থা জারি ঠিক হয়নি। তবুও জরুরি অবস্থা জারি অসাংবিধানিক কি না, তা খতিয়ে দেখা হবে।’ এ বিষয়ে কেন্দ্রের বক্তব্যও জানতে চেয়েছে শীর্ষ আদালত।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only