রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০

বিজেপিকে থামানোর পথ দেখাল হায়দরাবাদ, মন্তব্য কেসিআর কন্যার

কেসিআর কন্যা কবিতা



পুবের কলম প্রতিবেদকঃ তেলেঙ্গানার শাসক দল টিআরএস হায়দরাবাদ পুরনির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন পেয়েছে। তবে বিজেপিও তার আসন অনেকটা বাড়িয়েছে। এর ফলে নতুন মেয়র নির্বাচনের জন্য টিআরএসকে আসাদুদ্দিন ওয়েসির এআইএমআইএম দলের সমর্থন দরকার হবে। যাই হোক, টিআরএসের বর্ষীয়ান নেতাকে কবিতা বলেছেন, এই বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখনও সময় আছে। তাঁরা আগে আলোচনায় বসতে চান। মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের কন্যা কবিতা জানিয়েছেন যে, অন্তত এক ডজন ওয়ার্ডে খুব কম মার্জিনে হেরেছে। দলের প্রত্যাশা এমনটা ছিল না। তাঁর কথায়, নেতাদের প্যারেড করিয়ে বিজেপি ভোটারদের বিভ্রান্ত করেছে। বিজেপিই সব জায়গায় আগ্রাসী রাজনীতি করে চলেছে। এটাই তাদের কৌশল। তবে ২০২৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে তিনি বলেছেন যে, তাঁর দল এক ধাপ এগিয়ে রয়েছে। পাশাপাশি বলেছেন, ‘আমরা দুর্বল নই। আমরা সুসংগঠিত দল। রয়েছে ৬০ লক্ষ সদস্য এবং লড়াইয়ে পিছপা হব না। বৃহত্তম দল হিসাবে বিজেপির উত্থানে আমরা দাড়ি টেনে দিতে সক্ষম হয়েছি। দেশের বাকি দলগুলি টিআরএসের কাছ থেকে শিখতে পারে। হায়দরাবাদ দেখিয়ে দিল কীভাবে বিজেপিকে থামানো যায়।’ প্রসঙ্গত, বৃহত্তর হায়দরাবাদ পুর কর্পোরেশনের ১৫০টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৫৫টিতে জয়ী হয়েছে টিআরএস। বিজেপি পেয়েছে ৪৮টি এবং এ আইএমআইএম পেয়েছে ৪৪টি আসন। বিজেপি তাদের প্রথমত জোর দিয়েছিল পাকিস্তান, হিন্দু-মুসলিম ও হায়দরাবাদের নাম ভাগ্যনগর হওয়া উচিত কি না, সেই বিষয়ে। নামিয়েছিল হেভিওয়েট নেতাদের। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ,উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথরা হাজির হয়েছিলেন সাধারণ পুরনির্বাচনে। ওয়েসি ও টিআরএসকে আক্রমণ করে বিজেপি এদের ‘অশুভ আঁতাত’-এর তত্ত্ব খাড়া করেছিল। হায়দরাবাদের বন্যাপীড়িত এলাকায় বিজেপি সবচেয়ে ভালো ফল করেছে। কেন-না এখানকার বাসিন্দাদের বন্যাত্রাণ নিয়ে ক্ষোভ ছিল। বিজেপি সেই অসন্তোষকে কাজে লাগিয়েছে। তবে কবিতা কেন্দ্রকে সমালোচনা করে বলেছেন যে, বন্যার সময় কেন্দ্র সরকারের কোনও সাহায্য তাঁরা পাননি। করোনা অতিমারির আবহেও ত্রাণ দিয়েছে টিআরএস কিন্তু কেন্দ্র বাধা দেয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only