বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২০

জোট ১১২,বিজেপি ৭৫ জোর টক্কর জম্মু-কাশ্মীরে



শ্রীনগর,২৩ ডিসেম্বরঃ জম্মু-কাশ্মীরে ডিস্ট্রিক্ট ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল (ডিডিসি) নির্বাচনে চূড়ান্ত ফল ঘোষণা হতে এখনও কিছুটা সময় বাকি। যদিও শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, ভোটে বিজেপির থেকে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে এনসি-পিডিপির জোট পিপলস অ্যালায়েন্স ফর গুপকর ডিক্লিয়ারেশন (পিএজিডি)। পিএজিডি এখনও পর্যন্ত জয়ী হয়েছে ১১২টি আসনে। অন্যদিকে, বিজেপি জয়ী হয়েছে ৭৫টি আসনে। ২৮৮ আসনের এই নির্বাচনে এবার বিজেপি যা ফল করেছে তাতে খুশি গেরুয়া শিবির। কংগ্রেস জয়ী হয়েছে ২৬ আসনে। সিপিআইএম জয়ী হয়েছে ৫ আসনে। ৭৫ আসন পেয়ে রাজ্যে একক বৃহত্তর দলের মর্যাদা আদায় করে নিয়েছে বিজেপি। ৩৭০ রদের পর এই প্রথম নির্বাচন হল উপত্যকায়। তাতে এই প্রথম এত ভালো ফল করল গেরুয়া শিবির। বিজেপি সাংসদ অনুরাগ ঠাকুর বলেন, ভোটের ফল প্রমাণ করছে মোদিজির নীতির উপর আস্থা রয়েছে উপত্যকার মানুষের। আরও এক কদম এগিয়ে কেন্দ্রীয়মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ বলেন, বিজেপির এই ফল জঙ্গি ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের গালে বড় থাপ্পড়। স্বাভাবিকভাবেই জম্মু-কাশ্মীরে কীভাবে এতটা আসন পেল বিজেপি তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। যদিও এনসি-র শীর্ষনেতা ওমর আবদুল্লাহ স্বীকার করে নিয়েছে, তাঁদের ফল আরও ভালো হতে পারত। কিন্তু কিছু জায়গায় তাঁদের সাংগঠনিক দুর্বলতা ছিল। একইসঙ্গে তিনি এও বলেছেন, ভোটে এই ফলাফলের পর বিজেপি হয়তো এখনই আর রাজ্যে বিধানসভা ভোট করতে চাইবে না। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘এই নির্বাচনে যদি আমরা পরাজিত হতাম তাহলে বিজেপি আমাদের নিশ্চিতভাবেই দেশ-বিরোধী বলত।’ পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি বলেছেন, ভোটের ফলাফল প্রমাণ করে কেন্দ্রের ৩৭০ ধারা রদকে প্রত্যাখ্যান করেছে উপত্তার মানুষ।  

তবে এই নির্বাচনে যে সমানে সমানে লড়াই হয়েছে তা স্পষ্ট। অন্তত ১৯টির মতো আসনে জয়ের ব্যবধান ছিল ১০০ ভোটেরও কম। এনসি মূলত কাশ্মীর-ভিত্তিক দল, জম্মুতে এর তেমন জোর নেই বলে এতদিন যে তকমা জুটেছিল তা এ দিন খণ্ডন করে দিয়েছেন দলের সুপ্রিমো ফারুক আবদুল্লাহ। তিনি বলেন ‘আমরা যদি শুধু কাশ্মীরের দল হতাম,তাহলে জম্মুতে ৩৫টি আসন পেতাম না।’ উল্লেখ্য, জম্মুতে ১৪০টি আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছে ৭১টি আসন।     


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only