বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০

পর্যটনের আশায় মাইথনের নৌকা চালকরা



পারিজাত মোল্লা, মঙ্গলকোট:­ বর্ষশেষের মাস কিংবা বর্ষশুরুর সময়কাল ‘পিকনিক সিজন’ হিসাবেই পরিচিত মাইথন এলাকা। করোনা আবহে স্বাভাবিক জনজীবনে ঘটেছে বিপত্তি, তবুও রোজগারের আশায় পশ্চিম বর্ধমান জেলার সীমান্তবর্তী মাইথন এলাকার নৌকা চালকরা। পিকনিকের সময় মাইথন পর্যটন কেন্দ্রে দূর-দূরান্ত থেকে পর্যটকরা আসেন জলাধারে পিকনিক করার আনন্দ উপভোগ করতে। পিকনিকের মরশুমে নৌকা চালকরা নৌকা মেরামত বা রঙ করে সুন্দরভাবে সাজানোর কাজ শুরু করে দেন পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াবার জন্যে। কারণ সারা বছরের এই ডিসেম্বর আর জানুয়ারি মাসে পিকনিকের সময় নৌকা চালকদের আয় ঘটে। তবে এবছর কি মাইথন পর্যটনকেন্দ্রে পিকনিক বা ঘুরতে পর্যটকরা আসবে? তা নিয়ে চিন্তিত নৌকা চালকরা। করোনার জেরে অন্যবছরের তুলনায় পর্যটকের সংখ্যা কমে গেছে। নৌকা চালকদের বক্তব্য  করোনার জেরে দীর্ঘদিন লকডাউন ঘোষণা করা হয়। যার ফল অনেকটাই পড়েছে পর্যটন ব্যবসাতে। বর্তমানে আনলক পর্ব চললেও কতটা সেই ক্ষরা তারা কাটিয়ে উঠতে পারবে দুশিন্তার মেঘ সবার কপালে। এখন দেখার সময়, মাইথনে শেষঅধি কতটা পর্যটকদের ভিড় হয়! এই আশাতে নৌকা চালকরা দিন গুনছে। তবে আশার খবর, বুধবার থেকে আসানসোল ডিভিশনে অধিকাংশ ট্রেন চালু হয়েছে। ক্রমশ স্বাভাবিকের পথে সমস্ত পরিবহন ব্যবস্থা। এখন শেষ কখা বলবে সময়ই।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only