শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২০

পাকিস্তানের ধুঁয়ো তুলে কৃষক আন্দোলন রোখার চক্রান্ত হচ্ছে­ মমতা



পুবের কলম প্রতিবেদকঃকৃষি আন্দোলন তাঁর ভিত্তি। সিঙ্গুর,নন্দীগ্রামের সময় তাঁর ভূমিকা ইতিহাসের পাতায় পৌঁছে গিয়েছে। বৃহস্পতিবার মেয়ো রোডে গান্ধি মূর্তির পাদদেশে দাঁড়িয়ে ফের কৃষকদের পাশে থাকার শপথ নিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ দিন তৃণমূলের ধরনামঞ্চ থেকে বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কৃষক আন্দোলন যাতে দানা বাঁধতে না পারে তার জন্য নানান চক্রান্ত করা হচ্ছে। তাঁর অভিযোগ, যখনই কোনও আন্দোলন হয়, তখনই বলে পাকিস্তান আক্রমণ করেছে। প্রত্যেকটা আন্দোলন বন্ধ করার জন্য চক্রান্ত করা হচ্ছে। এভাবে কৃষকদের কর্পোরেটদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করা হচ্ছে।

এ দিন বিজেপিকে বহিরাগতের দল বলে কটাক্ষ করেন মমতা। একইসঙ্গে তিনি বলেন, কোনওভাবেই বাংলাকে বহিরাগতদের হাতে তুলে দেবেন না। মমতার কথায়, বিজেপি দিল্লির পার্টি, তার থেকেও বেশি গুজরাতের পার্টি। এর মাধ্যমে তিনি আরও একবার স্মরণ করিয়ে দিতে চান মোদি সরকারের সময় গুজরাতে সাম্প্রদায়িক হিংসার কথা। বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাংলায় হিংসার মাধ্যমেই নিজেদের পায়ের তলার জমি শক্ত করতে চাইছে বিজেপি। 

বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের এতদিন বহিরাগত বলে আক্রমণ করছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ তৃণমূল নেতারা। এবার আরও একধাপ এগিয়ে দল হিসেবেই বিজেপিকে দিল্লি, গুজরাতের বলে আক্রমণের নতুন কৌশল নিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কারণ নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে অন্যান্য বিজেপি নেতারা বারবার বাঙালি আবেগকে উসকে দিতে চাইছেন। মমতা এ দিন মেয়ো রোড থেকে তারই জবার দিলেন। 

বিজেপি বাংলার সংস্কৃতি সম্পর্কে কতটা অজ্ঞ তাও উঠে এসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়। তাঁর অভিযোগ, রবীন্দ্রনাথকে নিয়েও মিথ্যাচার করছে বিজেপি। এই মনীষীর জন্ম জোড়াসাঁকোয় হলেও বলা হচ্ছে তিনি জন্মেছিলেন বিশ্বভারতীতে। রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে যাঁরা মিথ্যে কথা বলছেন, তাঁরা আমাকে নিয়েও বলবেন। ২০২১ সালে এ রাজ্যে যাঁরা পদ্মফুল ফোটার স্বপ্ন দেখছেন, বাংলার সংস্কৃতি নিয়ে অনেক বড় বড় কথা বলছেন, বাস্তব হল রবীন্দ্রনাথের কোথায় জন্ম, সেটাও বিজেপি নেতাদের জানা নেই। 

এ দিন নিজের বক্তব্যে রাজ্যের সংস্কৃতি নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। তৃণমূল কংগ্রেসের শাসনে নাকি সবকিছুর অবনতি হয়েছে। এই ইস্যুতেও বিজেপির ‘মিথ্যাচার’ ফের সামনে আনেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ, ভোজপুরি সিনেমায় এক মহিলার শাড়ি ধরে টানার ভিডিয়ো বাংলার বলে চালানোর চেষ্টা করেছিল বিজেপি। তা মনে করিয়ে দেন। বাংলাদেশের একটি ঘটনাকে যে এ রাজ্যের বলে চালানোর চেষ্টা হয়েছিল, তাও উল্লেখ করেন তিনি।

এ দিন বিজেপির পাশাপাশি আরএসএসকে নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন মমতা। তাঁর অভিযোগ, বাইরে থেকে গুন্ডা নিয়ে এসে গ্রামে গ্রামে ঘুরছে গেরুয়া বাহিনী। এই বিষয়ে তিনি সকলকে সতর্ক করে জানিয়ে দেন, গ্রামে বহিরাগতদের দেখলে পুলিশে যোগাযোগ করতে। তিনি বলেন, অচেনা কেউকে দেখলে গ্রামের মহিলারা চেস করুন। 

এ দিন গান্ধিমূর্তির পাদদেশে দাঁড়িয়ে কৃষি বিল প্রত্যাহারের দাবি তোলেন তিনি। তিনি বলেন, কৃষকদের পাশে সর্বদাই রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এই সভায় নিজের ২৬ দিনের অনশনের প্রসঙ্গ স্মরণ করিয়ে দিয়ে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘কৃষকদের আন্দোলন থেকে আমরা সরব না।’

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only