শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০

চাঁদের ধুলো-মাটি কিনবে নাসা



পুবের কলম ডেস্কঃ চাঁদের ধুলো-মাটি,বালি,নুড়ি-পাথর ইত্যাদি উপাদান বা নমুনা কিনতে চায় আমেরিকা। এ জন্য মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা ৪টি সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করেছে। বৃহস্পতিবার নাসার তরফে এক ঘোষণায় বলা হয়, চাঁদের অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে নমুনা সংগ্রহ করে আনার জন্য বরাত দেওয়া হয়েছে ৪টি কোম্পানিকে। চাঁদে গিয়ে তারা যেসব উপাদান নিয়ে আসবে তার জন্য ১ ডলার থেকে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার ডলার দেওয়া হবে। ৪টি কোম্পানিকে মোট দেওয়া হবে ২৫ হাজার ১ ডলার। উল্লেখ্য, চাঁদে সংক্ষিপ্ত অভিযান সেরে পৃথিবীতে ফিরছে চিনা চন্দ্রযান ‘চ্যাং-ই-৫’। তারা সেখান থেকে চাঁদের নুড়ি-পাথর-মাটি ইত্যাদি সংগ্রহ করে ফিরছে। সাড়ে ৪ দশক পর কোনও দেশের চন্দ্রযান চাঁদের মাটিতে পা রেখে মিশন সুষ্ঠুভাবে সমাপ্ত করে সাফল্য পেল। 

বৃহস্পতিবার এ কথা ঘোষণা করে চিনা মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। একইদিনে নাসার তরফে এই ঘোষণার মধ্যে তীর্যক রসায়নী গন্ধ পাচ্ছেন অনেকে। কেউ বলছেন, চিনা চন্দ্রযান যেসব উপাদান নিয়ে পৃথিবী পৃষ্ঠে ফিরছে সেগুলোকে মামুলি বলে হেয় করতে চাইছে নাসা। তাই তারা ৪টে সংস্থাকে চাঁদের ধুলো-বালি-মাটি ইত্যাদি আনার জন্য চুক্তি করেছে বটে। কিন্তু নাসা সেগুলো কিনবে মাত্র ১ ডলার থেকে ১৫ হাজার ডলারের বিনিময়ে। এই ন্যূনতম দর হাঁকার মধ্যেই বোঝা যাচ্ছে চিনের চন্দ্রাভিযানকে নাসা খুব একটা গুরুত্ব দিতে চাইছে না। 

জানা গিয়েছে, কলোরাডোর লুনার আউটপোস্ট অব গোল্ডেন’কে ১ ডলার, টোকিও অব জাপান’কে ৫ হাজার ডলার, ইউরোপ অব লুক্সেমবার্গ’কে ৫ হাজার ডলার এবং ক্যালিফোর্নিয়ার মাস্টেন স্পেস সিস্টেম অব মোজাভে’কে ১৫ হাজার ডলার দেবে নাসা। এ কথা জানিয়ে নাসার ডিরেক্টর ফিল ম্যাক অ্যালিস্টার বলেছেন, চাঁদের নমুনা বা উপাদান কেনার ভাবনাটা খুবই অভিনব এবং চমকপ্রদ। ২০২২ এবং ২০২৩ সাল নাগাদ তারা চাঁদের বাড়ি যাবে। সেখানে গিয়ে অভিযানের যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয়ের ছবি এবং ভিডিয়োও তুলে আনবে ওই ৪ কোম্পানি। এর মাধ্যমে বহু দেশের মহাকাশ বিষয়ক সংস্থা উদ্বুদ্ধ হবে এবং অনুপ্রেরণা পাবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only