বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০

৩ দিনের সফরে রাজ্যে আসছেন উপ-নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন



পুবের কলম প্রতিবেদকঃমাঝে আর কয়েকমাস। তারপরই রাজ্যে বিধানসভা ভোট। তার আগে ভোটের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে ৩ দিনের সফরে পশ্চিমবঙ্গে আসছেন উপ-নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। তাঁর সঙ্গে থাকবেন কমিশনের এক আধিকারিকও। রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বৈঠক করবেন বলে সূত্রের খবর। জানা গিয়েছে,আগামী বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে মধ্য কলকাতার একটি পাঁচতারা হোটেলে প্রেসিডেন্সি রেঞ্জ, বর্ধমান এবং মেদিনীপুর ডিভিশনের অন্তর্গত ১৪টি জেলার জেলাশাসক,পুলিশ সুপার ও পুলিশ কমিশনারদের সঙ্গে বৈঠক করবেন জৈন। দ্বিতীয়ার্ধে রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী অফিসার-সহ (সিইও) পদস্থদের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন তিনি। ওই দিনই রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়াও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিবের সঙ্গেও কথা বলতে পারেন তিনি। শুক্রবার সকালে হেলিকপ্টারে মালদায় যাওয়ার কথা উপনির্বাচন কমিশনারের। সেখানে মালদার জেলাশাসকের দফতরে মালদা ডিভিশনে থাকা চারটি জেলার জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারের সঙ্গে ভোট প্রস্তুতির বৈঠকের কার্যসূচি রয়েছে জৈনের। দ্বিতীয়ার্ধে জলপাইগুড়ি ডিভিশনের পাঁচটি জেলার জেলাশাসক,পুলিশ সুপার ও কমিশনারের সঙ্গে বৈঠক করার কথা। কমিশনের দাবি, শুধু আইন-শৃঙ্খলা নয়। বুথ পুনর্গঠন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম),তার প্রথম দফার পরীক্ষা চলছে, সেই সব বিষয় উঠে আসবে বৈঠকে। ভোটার তালিকা, ভোটকর্মী, গাড়ি, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ও ৮০ বছরের বেশি বয়সিদের ভোটদান নিয়ে প্রস্তুতি বৈঠক করবেন জৈন। ওই বৈঠকের ‘মহড়া’ সোমবার ভিডিয়ো বৈঠকে করেছেন সিইও আরিজ আফতাব-সহ দায়িত্বপ্রাপ্তেরা। ১৮ নভেম্বর থেকে রাজ্যে শুরু হয়েছে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ।  মঙ্গলবার তার শেষ দিন। চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশিত হবে ১৫ জানুয়ারি। ইতিমধ্যে ভোটার তালিকা সংশোধন বাম প্রতিনিধিদল মুখ্যনির্বাচনী আধিকারিক আরিজ আফতাবের দফতরে যায়। সূত্রের খবর, বামেদের অভিযোগ, ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ শুরু হলেও অনেক জায়গাতেই তদারককারী ব্লক লেভেল অফিসারদের দেখা মিলছে না। একই ইস্যুতে মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতরে গিয়ে আলাদাভাবে অভিযোগ জানিয়ে এসেছে বিজেপির প্রতিনিধিদলও।

এ দিকে এ দিনই দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের অফিসে গিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ করে আসেন বিজেপি সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত ও সব্যসাচী দত্তেরা। তাঁদের তরফে দাবি তোলা হয়েছে, ভোটের আগেই রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হোক। তা না হলে কোনওভাবেই অবাধ ও সুষ্ঠু ভোটগ্রহণ সম্ভব নয়।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only