বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০

এবছরই অসম হাইমাদ্রাসার শেষ পরীক্ষা,জানালেন হিমন্ত



বিশেষ প্রতিবেদকঃ অসমে সরকার পরিচালিত মাদ্রাসাগুলো বন্ধ করার বিষয়ে মন্ত্রিসভায় ইতিমধ্যেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছে। অসমে মোট ১৮৯টি মাদ্রাসা রয়েছে সেবা বা রাজ্য মধ্যশিক্ষা পর্ষদের অধীনে। এ ছাড়া রাজ্য মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে ৪টি আরবি কলেজ,১৪টি টাইটেল মাদ্রাসা, ১৩৮টি সিনিয়র মাদ্রাসা, ২৩০টি প্রি-সিনিয়র মাদ্রাসা রয়েছে। এই সব মাদ্রাসাকে সাধারণ বিদ্যালয়ে রুপান্তর করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়ালের নেতৃত্বাধীন অসমের বিজেপি সরকার। সেইসঙ্গে হাইমাদ্রাসা থেকে সরিয়ে দেওয়া হল ‘মাদ্রাসা’ শধটি। বিলুপ্ত করে দেওয়া হচ্ছে মাদ্রাসা বোর্ডও। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে এই সব মাদ্রাসার পড়ুয়াদের দিতে হবে মাধ্যমিক পরীক্ষা। 

রবিবার অসম মন্ত্রিসভায় গৃহীত সিদ্ধান্তের কথা দু’দিন পর বিস্তারিতভাবে তুলে ধরলেন সে রাজ্যের শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে দিসপুর জনতা ভবনে হিমন্ত জানান, হাই মাদ্রাসায় ৫০ নম্বরের কুরআন নিয়ে ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হত। সেটা এখন উঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। হাই মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীদের এবার থেকে হাইস্কুলের পড়ুয়া হিসাবে ধরা হবে। এতে সমস্ত হাইমাদ্রাসা পুরোপুরি ধর্মনিরপেক্ষ হয়ে উঠবে। তাই ২০২২ সাল থেকে অসমে আর হাইমাদ্রাসা পরীক্ষা হবে না। এবারই হাইমাদ্রাসার শেষ পরীক্ষা বলে জানালেন হিমন্তবিশ্ব শর্মা। পাশাপাশি তিনি জানান, পরবর্তী বিধানসভা অধিবেশনে সরকারি মাদ্রাসা বন্ধের জন্য একটি বিল উত্থাপন করা হবে। সেইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ২০২১ সালের ১ এপ্রিল থেকে স্কুলগুলোতে কুরআন এবং ইসলামি শিক্ষা দেওয়া বন্ধ করা হবে।

১৯৩৪ সালে ব্রিটিশ ভারতে যখন অসমের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন মুসলিম লিগের সাইয়েদ সাদুল্লাহ, তখন থেকেই সরকারিভাবে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রচলন। দীর্ঘদিন এই পদ্ধতি চলতে পারে না বলে মনে করেন হিমন্তবিশ্ব শর্মারা। তাঁর দাবি, সরকারি পরিচালনায় মাদ্রাসা চললে তা মোটেই ধর্মনিরপেক্ষতার নিদর্শন নয়। এবার গোটা রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধর্মনিরপেক্ষ করা হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only