শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২০

মানুষের কাছে যাচ্ছে সরকার, যা বামেরা ৩৪ বছরে ভাবতে পারেনি:ত্রিদিব





দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট, ১১ ডিসেম্বর: আজ বামের ভোট রামের কাছে যাচ্ছে। কিন্তু বামফ্রন্ট ৩৪ বছরে কি ভাবতে পেরেছিল যে সরকার যাবে মানুষের দুয়ারে? বিরোধীরা কটাক্ষ করছেন, ভোট এসেছে তাই দুয়ারে সরকার। কিন্তু তা নয়। সারা বছর ধরে কি কি করতে পেরেছে তার রিপোর্ট কার্ড পৌঁছে দিতে পেরেছে এই সরকার। হাঁসন বিধানসভা কেন্দ্রে বঙ্গধ্বনি প্রকল্পের সূচনা করতে গিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে একথা বলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব ভট্টাচার্য। তিনি বলেন,  বিগত ১০ বছরের সমস্ত কাজের রিপোর্ট লেখা আছে এই কার্ডে। রামপুরহাট দলীয় কার্যালয়ে একই ভাবে দলের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে সাংবাদিক বৈঠকে বিরোধীদের কড়া সমালোচনা করেন মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, বিরোধীরা কোন গঠন মূলক কাজ করতে পারেন না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা বলেন, তা করেন। আমরা তো দেখলাম, নরেন্দ্র মোদী তো ১৫ লক্ষ টাকা ব্যাংকে ঢুকিয়ে দেবেন বলেছিলেন। কিন্তু তা কী করলেন? মিথ্যা ভাষণ দিলেন।   নলহাটিতে বিধায়ক মইনুদ্দিন শামস  বঙ্গধ্বনি সূচনাকালে বলেন, বিজেপি রাজ্যে এসে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা নষ্ট করার চেষ্টা করছে। আমরা উন্নয়নকে হাতিয়ার করে তার জবাব দেব। একইভাবে মুরারইয়ে বিধায়ক আব্দুর রহমান বঙ্গধ্বনির সূচনা করেন। বাঁশলৈ থেকে কাঠিয়া মোড় পর্যন্ত মিছিল হয় এবং বিভিন্ন মানুষের কাছে দলের রিপোর্ট কার্ড তুলে দেওয়া হয়। বোলপুরে জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল এই বঙ্গধ্বনি প্রকল্পের সূচনা করেন। তিনি বলেন, বিগত দশ বছরে সরকারের কাজের হিসাব মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মিথ্যা কথা বলেন না। পাশাপাশি, বিজেপি সরকার তারা যে কিছুই করে নি, সেটাও প্রমাণ হবে। জানা গেছে, আগামী ১০ দিন দলীয় কর্মীরা বাড়ি বাড়ি এই কার্ড ক্যালেন্ডার পৌঁছে দেবেন। গোটা রাজ্যের সাথে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে চলবে বঙ্গধ্বনির প্রচার।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only