সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০

করোনা জীবাণুমুক্ত করার যন্ত্র উদ্ভাবন জামিয়ার দুই বিজ্ঞানীর



পুবের কলম প্রতিবেদকঃফের খবরের শিরোনামে দিল্লির জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়া। গবেষণা ও সম্মান প্রাপ্তিতে বারবারই উঠে আসছে দেশের এই অন্যতম সেরা বিশ্ববিদ্যালয়টির নাম। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এবার সোলারচালিত স্বয়ংক্রিয় নির্বীজন পদ্ধতির আবিষ্কার করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন জামিয়ার গবেষকরা। প্রতিষ্ঠানটির মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের গবেষকরা মিলে এটার উন্নতি সাধন করেছে। তাদের এই আবিষ্কার ভারত সরকারের পেটেন্ট অফিসের অফিসিয়াল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এখন শুধু পেটেন্টের অপেক্ষায়। মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মুহাম্মদ ইমরান খান ও অধ্যাপক ড. ওসামা খান এই সৌরশক্তিচালিত ডিসইনফেকশন সিস্টেম আবিষ্কার করেছেন। এর ফলে বৃহৎ সমাবেশ, দূরের গ্রামে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে নির্বীজন পদ্ধতির মাধ্যমে। গ্রামগুলোতে অনেক সময় বিদ্যুৎ থাকে না। সেক্ষেত্রেও কোনও অসুবিধা নেই। কারণ এটি চলবে সৌরশক্তির মাধ্যমে। 

এই যন্ত্রে সোলার পাওয়ার ব্যবস্থা, পিভি মডিউলস, চার্জ রেগুলেটর, ইনভার্টার, ব্যাটারি,জেনারেটর রয়েছে। কোনও ক্ষতিকারক ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করবে এই যন্ত্রের চেম্বারে উৎপন্ন হওয়া ধোঁয়া। এটি সাধারণত পাবলিক প্লেস ও আউটডোরেই ভালো কাজ করবে, যেমন বড় জনসভা, হাসপাতাল,স্কুল,ধর্মীয় স্থান ইত্যাদিতে। এর ব্যবহার পরিবেশ সহায়ক বলে জানিয়েছেন ওই দুই বিজ্ঞানী। সোলার চালিত হওয়ায় প্রকৃতির উপর এর কোনও কুপ্রভাব পড়বে না। অন্য যেকোনও নির্বীজন পদ্ধতির চেয়ে এটি ভালো কাজ করবে এবং খরচও কম। বিশ্বে ও দেশে এখনও কোভিড আতঙ্ক রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এটি খুবই কার্যকরী হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞদের মত। ডিসইনফেকশনের জন্য রাসায়নিক বহন ও বিদ্যুতের প্রয়োজন অনেক ক্ষেত্রেই অসুবিধার সৃষ্টি করে। সোলারচালিত হওয়ায় বিদ্যুতের সমস্যা মিটছে। অন্যদিকে, এর স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা ট্যাপের জল ব্যবহার করেই মিশ্রণ তৈরি করতে পারবে যেকোনও স্থানে। এ হেন আবিষ্কারে জামিয়ার পড়ুয়া শিক্ষকদের মুখে স্বভাবতই তৃপ্তির হাসি। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only