মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১

ডিম ও মুরগি কি খাওয়া যাবে এখন? পড়ুন বিস্তারিত



বিশেষ প্রতিবেদনঃগোটা বিশ্বে ঘনঘন বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিচ্ছে। ভারতও এর ব্যতিক্রম নয়। হিমাচল প্রদেশ, হরিয়ানা,কেরল,মধ্যপ্রদেশে তীব্র আকার ধারণ করেছে বার্ড ফ্লু। বিপদে রয়েছে পঞ্জাব,রাজস্থান,গুজরাত,কর্নাটক,দিল্লি, মহারাষ্ট্র,উত্তরাখণ্ড ও জম্মু-কাশ্মীর। শয়ে শয়ে পাখি ইতিমধ্যে মারা গিয়েছে এবং সতর্ক করা হচ্ছে যে, এই রোগ পাখি থেকে মানুষের দেহে সংক্রমিত হতে পারে। 


বার্ড ফ্লু কী?

পাখিদের এক ধরনের ইনফ্লুয়েঞ্জা। একে বলা হয় এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা। ইনফ্লুয়েঞ্জা টাইপ-এ ভাইরাসের কারণে এই ভাইরাল রোগ হয়। সাধারণত সব ধরনের পাখিই আক্রান্ত হয় এতে। পোলট্রির পাখিরাও। এই ভাইরাসের নানা প্রজাতি রয়েছে। অধিকাংশ প্রজাতির আক্রমণে পাখির দেহে হালকা উপসর্গ দেখা দেয় এবং ডিম কমে যায়। কিন্তু কয়েকটি প্রজাতি এমন রয়েছে যার সংক্রমণে মৃত্যু হয় পাখির। এখন এইচ৫এন১ ও এইচ৮এন১ প্রজাতির ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে,যার ফলে মরছে পাখিরা। 


পাখিদের মধ্যে ফ্লু কীভাবে ছড়ায়?

পাতিহাঁস ও রাজহাঁসের কিছু বন্য প্রজাতির মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জা টাইপ-এ ভাইরাস স্বাভাবিক ভাবে থাকে বলে মনে করা হয়। বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস, অসুস্থ না হয়েই কিছু পাখি ফ্লু ভাইরাসের নানা প্রজাতি বহন করে ও অন্য পাখিদের মধ্যে ছড়ায়। ওড়ার সময় পাখিরা এর থেকে মুক্ত হতে পারে। বাহক পাখি সারা বিশ্বে এই ফ্লু ভাইরাস ছড়িয়ে বেড়ায়। কাকতালীয় ভাবে,পরিযায়ী পাখি আসার মরসুমে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। যেমন হিমাচল প্রদেশে শয়ে শয়ে পরিযায়ী পাখি এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জায় মারা গিয়েছে এই মরসুমে। 


পাখি থেকে মানুষের মধ্যে এই ফ্লু ছড়ানোর সম্ভাবনা কতটা?

এই এভিয়ান ফ্লু ভাইরাস জলে চরা পাখিদের থেকে অন্যান্য পাখিদের মধ্যে ছড়ায়। বাদ যায় না পোলট্রিও। এদের থেকে ছড়িয়ে পড়ে কুকুর,বিড়াল,ঘোড়া,শূকর প্রভৃতি পশুর দেহে। পাখি ও পশুর দেহ থেকে বার্ড ফ্লু সচরাচর ছড়িয়ে পড়ে না। ১৯৯৭ সালে হংকংয়ে এমনটা ঘটেছিল। হংকংয়ের এক পাখিবাজার থেকে এর প্রাদুর্ভাব হয়েছিল। এইচ৫এন১ প্রজাতির ভাইরাস ছিল সেটা। তাতে মৃত্যুর হার ছিল বেশি। আক্রান্ত ১৮ জনের মধ্যে ৬ জন মারা গিয়েছিল। তারপর থেকে,পঞ্চাশটিরও বেশি দেশ এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জাকে চিহ্নিত করে। আমেরিকার সেন্টার অফ ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের তথ্য অনুযায়ী,এইচ৫এন১ ভাইরাসে মহামারি দেখা দেয় ৬টি দেশে। এই তালিকায় ভারতও রয়েছে। বাকিরা হল চিন,বাংলাদেশ,ইন্দোনেশিয়া,মিশর ও ভিয়েতনাম। ২০০৩ সালে এই বার্ড ফ্লু আবার ব্যাপক আকার ধারণ করে ফিরে আসে এবং বহু দেশকে বিপদে ফেলে। 


কীভাবে ছড়াতে পারে মানবদেহে?

মানুষের মধ্যে বার্ড ফ্লু ছড়ানো সহজ নয়। একের থেকে অন্যের দেহে বার্ড ফ্লু সচরাচর ছড়ায় না। যারা আক্রান্ত পাখিদের,জীবিত হোক বা মৃত,ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে কাজ করে বা ভালো ভাবে রান্না না করে বা আধাসিদ্ধ পোলট্রির দ্রব্য খায় তাদের ক্ষেত্রে ঝুঁকি রয়েছে। ‘হু’ স্পষ্ট ভাবে জানিয়েছে, ভালো ভাবে রান্না করা খাবার খেয়েও আক্রান্ত হয়েছে, এমন প্রমাণ নেই। অন্যান্য ভাইরাসের মতো,তাপ সহ্য করতে পারে না বার্ড ফ্লুর ভাইরাস। রান্নার তাপে বা ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রায় এই ভাইরাস মারা যায়। তবে বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন,এই ভাইরাস বারবার রুপ বদলে অন্য আদল নেয়। ফলে বার্ড ফ্লু মহামারির আকার নেওয়া অসম্ভব কিছু নয়। কোভিড-১৯ অতিমারির কারণে এই বিপদের সম্ভাবনা তুলনামূলক ভাবে বেশি। 


বার্ড ফ্লু হলে কী হয়?

বার্ড ফ্লু সাধারণত পাখিদের অন্ত্রে আক্রমণ করে। কিন্তু এই রোগ যখন মানুষের দেহে ছড়াবে তখন শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেবে। হতে পারে অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ডিসট্রেস সিনড্রোম। কোভিড১৯-এ যেমনটা দেখা দেয় সে রকমই। প্রাথমিক উপসর্গ হল জ্বর,কাশি ও গলা ব্যথা। তলপেটে ব্যথা ও ডায়রিয়াও হতে পারে। এই উপসর্গগুলি করোনাতেও দেখা যায়। তবে একটা মূল পার্থক্য রয়েছে। সেটা হল,মানুষের ফুসফুসের অনেক গভীরে থাকে এইচ৫এন১ ভাইরাসের রিসেপ্টর বা গ্রাহক। সোয়াইন ফ্লু বা কোভিড১৯-এর ক্ষেত্রে গ্রাহক থাকে শ্বাসতন্ত্রের উপরের দিকে,যেমন মানুষের নাসিকা অঞ্চলে। যদিও মানুষের বার্ড ফ্লু হলে তেমন নির্দিষ্ট কোনও ওষুধ নেই। কিছু অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ যেমন ওসেলটামিভির দ্রুত সেরে উঠতে সাহায্য করে। এর কোনও টিকাও নেই। 


ভারতে আগে হয়েছে বার্ড ফ্লু?

২০০৬ সাল থেকে নানা সময়ে বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব দেখা গিয়েছে ভারতে। প্রথম দেখা যায় গুজরাত ও মহারাষ্ট্রে। তারপর থেকে অন্তত ১৫টি রাজ্য বার্ড ফ্লুতে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানায়। তবে, মানুষের বার্ড ফ্লু হওয়ার কোনও তথ্য নেই। কিন্তু যদি কারও দেহে উপসর্গ দেখা যায় এবং তিনি নিশ্চিত হতে চান তাহলে গলা থেকে সোয়াব নিয়ে এভিয়ান ফ্লুর পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া যায়। 


ডিম ও মুরগি কি খাওয়া যাবে এখন?

নিশ্চয়ই। ভালো ভাবে রান্না করা ডিম বা মুরগির মাংস বা পোলট্রি দ্রব্য নিরাপদ। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only