শুক্রবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২১

‘শুধু নিজেকে নিয়ে সীমাবদ্ধ থাকা জীবন নয়’:ড. পার্থ চট্টোপাধ্যায়



বিশেষ প্রতিবেদনঃআমার কাছে প্রতিটি সকালই নববর্ষ,কারণ আমি প্রতিটি  দিনই আলাদা করে বাঁচি। পরের দিনই জন্মান্তর হয়। তবু ক্যালেন্ডারের একটা বাস্তব উপযোগিতা আছে বৈকী। ইতিহাসতো ক্যালেন্ডার মেনেই চলে। ক্যালেন্ডারই তো  চুপিসারে একটু একটু করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। আমার মতো বৃদ্ধের সামনের দিগন্ত রেখাকে ধূসর করে  তোলে। ভাবায়। গতকাল টিভির প্রোগ্রাম দেখতে দেখতে, বাজি ফাটার আওয়াজ  কানে আসতে আসতে যেভাবে পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানালাম ঠিক এইভাবে পরের বছরের জন্যও আমি বেঁচে থাকব তো? যদি  না থাকি  তাহলেও আমার বিন্দুমাত্র দুঃখ নেই। কারণ আমার মতো অতি সাধারণ মানুষের  হাতে আমার জীবন দেবতা যা তুলে দিয়েছেন তা অমূল্য। জীবন সমুদ্র মন্থন করে  আমি জীবনের অমৃত খুঁজে পেয়েছি। খুঁজে পেয়েছি বিষভান্ডও। বিধাতার দান অমৃত  ও বিষ দুটোই, তা মাথা পেতে দু’হাতে তুলে নিয়েছি। আমার জীবন উপলব্ধির কথা  লিখে গিয়েছি প্রাণ ভরে তৃষা হরে। আমার কাজ আমি করে গিয়েছি। তবু নববর্ষের  গোড়ায় আমার ভাবনার কিছু কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে যাই।

১) বিচ্ছন্নতাই মৃত্যু। ভৌগোলিক বিচ্ছিন্নতার চেয়ে মারাত্মক হল মানসিক বিচ্ছিন্নতাবোধ। আমি এই পৃথিবীর নই, আমি  একা, পরিত্যক্ত, এই বোধ মারাত্মক  ক্ষতি করে আমাদের জীবনকে। শুধু নিজেকে নিয়ে সীমাবদ্ধ থাকা জীবন নয়। আপন  সংসার বৃত্তের বাইরে যে ডাক সেটাই  জীবনের  আহ্বান।

২) কোনও সময়ই সুসসময় বা দুঃসময় নয়। প্রতি বছর হাজার হাজার লোক  অবস্থা ফেরাচ্ছে। যুদ্ধের সময় ব্যবসা করে কত লোক লাল হয়ে উঠেছে। ২০২০-তে করোনার বাজারেও কত ব্যবসায়ী কোটি কোটি টাকা কামিয়েছে। গরিব আরও গরিব  হচ্ছে। ধনী আরও ধনী হচ্ছে। এসব গল্প কথা নয়, নিজের চোখে দেখা। তাই ফেলে  আসা বছরটি যে সকলের কাছেই দুঃসময় ছিল তা বলবো না।

৩) যা হয়নি তার জন্য শোক করে সময় নষ্ট করে যা হতে পারে সেই সম্ভাবনাকে  নষ্ট করে দেওয়া চরম বোকামী।

৪) মানুষের আর্থিক কষ্ট সাময়িক। ইচ্ছা করলে মানুষ আর্থিক সংকট কাটিয়ে  উঠতে পারে। বড়লোক হওয়া কঠিন নয়। কঠিন হল চরিত্রবান হওয়া। মানুষকে  স্বচ্ছলও হতে হবে আবার চরিত্রবানও হতে হবে।

৫) নিজেকে রাবারের মত নয়, ইস্পাতের মতো করে তুলতে হবে। মানুষের  ভেতর যে দাহিকা শক্তি আছে তার জন্য তাকে  ইস্পাত হতে হবে। তারপর তার  পুননির্মাণ সম্ভব।

৬) দারিদ্র মানুষকে সংগ্রামী ও বাস্তববাদী করে তোলে। আমি দারিদ্রের আগুনে  পুড়ে খাঁটি মানুষ হয়েছি। যদি পুনর্জন্ম বলে কিছু থাকে তাহলে আগামী জন্মে আমি যেন সৎ দরিদ্রের ঘরে জন্মগ্রহণ করি, সেইসঙ্গে যেন দারিদ্রের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা নিয়ে জন্মাই।

৭) অতীতের ভুলভ্রান্তি আমাদের বড় শিক্ষক। ঠেকে শেখা দেখে শেখার চেয়ে  দামী। ভ্রান্তি আমার এক দেবী। যা দেবী সর্বভূতেষু ভ্রান্তিরুপেণ সংস্থিতা।

৮) ভালো কাজ হল সেই কাজ যা করলে আমাদের মনটা আনন্দে ভরে ওঠে।

আসুন আমরা সেই ভালো কাজের সন্ধানে ফিরি যা করলে এই চরম হতাশার  মধ্যেও আমাদের মনটা ভালো হয়ে উঠবে। 

(লেখক প্রবীণ সাংবাদিক ও জীবনবাদী লেখক) 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only