রবিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২১

‘ফ্যাসিস্ট বিজেপিকে ভোট নয়’,রাজ্যজুড়ে প্রচারে নামছেন সমাজকর্মীরা



পুবের কলম প্রতিবেদক:­বিজেপি প্রথমে জাতপাতের বিভেদ করে ক্ষমতা দখল করবে,তারপর মানুষের অধিকার কেড়ে নিয়ে পুঁজিপতিদের স্বার্থ দেখবে। তাই নিজেদের পছন্দের অন্য পার্টিকে ভোট দিন,বিজেপিকে একদমই ভোট দেবেন না। শহর থেকে গ্রাম, বাংলার সর্বত্র এই আহ্বান নিয়ে দরবার করবেন বুদ্ধিজীবীরা। তাই বিভিন্ন সমাজকর্মীদের নিয়ে গঠিত হয়েছে ‘ফ্যাসিস্ট আরএসএস-এর বিরুদ্ধে বাংলা’ নামে একটি মঞ্চ। সম্প্রতি কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এভাবেই ঘোষণা করেন মানবাধিকার কর্মী সুজাত ভদ্র,কস্তুরী বসু,কুশল দেবনাথ,তন্ময় ঘোষ,শঙ্কর দাস, সিনেমা পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ।

অধ্যাপক সুজাত ভদ্র বলেন, সিপিএম,তৃণমূল কংগ্রেস,জাতীয় কংগ্রেসের মতো দলের একটা ইতিহাস রয়েছে। সংগ্রাম ও মানুষের জন্য আন্দোলনের ইতিহাসে ভূমিকাও রয়েছে। কিন্তু আরএসএস নিয়ন্ত্রণাধীন বিজেপির ইতিহাস হচ্ছে মানুষের মধ্য বিভেদ সৃষ্টি করা। অধিকার কেড়ে নেওয়ার চক্রান্ত হচ্ছে দেশে। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, এনআরসি,এনপিআর করে মানুষের মৌলিক অধিকার কেড়ে নেওয়ার ছক কষছে বিজেপি। তাই তাদের বিরুদ্ধেই যাতে বাংলার মানুষ ভোট দেন, সেই প্রচার করা হবে। শিক্ষা স্বাস্থ্য থেকে পরিকাঠামো উন্নয়ন নিয়ে দাবি-দাওয়া অবশ্যই রয়েছে, তার আগে ফ্যাসিবাদকে রুখতে হবে বলেই মনে করছেন তাঁরা। তাই আগামী ১৩ জানুয়ারি দুপুরে মৌলালি মোড়ে নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অবস্থান করবেন বুদ্ধিজীবীরা। একইসঙ্গে রাজ্যজুড়ে ক্যাম্পেন শুরু হতে চলেছে বলেও খবর।

‘ফ্যাসিস্ট আরএসএস-এর বিরুদ্ধে বাংলা’ মঞ্চের একটি দাবি সনদ প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে,সিএএ, এনআরসি ও এনপিআর বাতিল করতে হবে। নয়া কৃষি ও শ্রম আইন প্রত্যাহার করতে হবে। ধর্ম ও জাতপাতের ভিত্তিতে মানুষকে উচ্ছেদের অপচেষ্টা বন্ধ করতে হবে। নয়া শিক্ষানীতি, নিট ও লাভ জিহাদ অর্ডিন্যান্স বাতিলের দাবিও তোলা হয়েছে। রাজ্যের সাংবিধানিক ক্ষমতার উপর কেন্দ্রীয় সরকারের হস্তক্ষেপ বন্ধ করা, রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি সহ একাধিক দাবিও ওঠে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only