মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

কেন ‘জয় বাংলা’কে আমরা পরিত্যাগ করব?

এইচ ইমরান: ১৯৭১ সালে জন্ম বাংলাদেশের একদা এই বাংলাদেশ অবিভক্ত বাংলার অন্তর্ভুক্ত ছিল আমাদের সঙ্গে ভাষাঐতিহ্য ইতিহাসের খানিকটা মিল থাকলেও বাংলাদেশ একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র।

 কিন্তু অনেকেই মনে করছেনবাঙালির ভাষাসংস্কৃতি ইতিহাসের সব কিছুই বোধহয় বাংলাদেশেরই প্রাপ্য। আমরা পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরা এক হাতে লন্ঠনআর অন্যহাতে পেনসিল নিয়ে বসে আছি! কারণ তাদের সম্ভবত ধারণারবীন্দ্রনাথ-নজরুল-বেগম রোকেয়া থেকে শুরু করে ইলিশ মাছ সবই বোধহয় বাংলাদেশেরসম্পত্তি' কী জানি কেন ভারতের চিহ্নিত এই গোষ্ঠীটি সব কিছুই বাংলাদেশকে বিলিয়ে দিতে বদ্ধপরিকর। 



এপার বাংলার কোনও বাঙালি যদিআমার সোনার বাংলাগানটি গাইতে চায়,  তবে এরাঁ চিৎকার করে ওঠেএই ব্যাঁটা নির্ঘাত বাংলাদেশি! ‘মুসলমান কিংবা অনুপ্রবেশকারী অথবা তৃণমূল কংগ্রেসি কিনাখুঁজে দেখো কারণ সোনার বাংলা তো বাংলাদেশের সম্পত্তিকিন্তু কেন বাঙালির সব উত্তরাধিকারকে বাংলাদেশের হাতে তুলে দিতে হবেতার কোনও ব্যাখ্যা ওইবিশেষ গোষ্ঠীটি' হাতে নেই। পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরা প্রজন্মের পর প্রজন্মজয় বাংলা' ধ্বনি দিতে অভ্যস্ত কিন্তু এই গেরুয়া গোষ্ঠীটির বক্তব্য হচ্ছে, ‘জয় বাংলা' নাকি ভারতবিরোধী শ্লোগান! কারণপার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র বাংলাদেশের মানুষরা তোজয় বাংলাবলে। এক অদ্ভূত যুক্তি। যেহেতু বাংলাদেশের লোকেরা ইলিশ এবং বাগদা চিংড়ি খায়,  সেহেতু আমরা পশ্চিমবঙ্গবাসীরা ইলিশ এবং বাগদা চিংড়ি খেতে পারব না। বাংলাদেশিরা রবীন্দ্রসংগীত নজরুলগীতি গায়তাই কলকাতাকেন্দ্রিক পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিদের এই দুই কবির লেখা গান গাওয়া বা কবিতা আবৃত্তি নাকি চলবে না! ভাবতেই হৃদয় হা-হা-কার করে ওঠে আমরা কি সবকিছুই বাংলাদেশের হাতে সমর্পণ করে এখানে শুধু কালীদাস বা ভবভুতি এবং মনু সংহিতা নিয়েই পরে থাকব এই বাংলার মানুষদের উপর ধরনের জুলুম না করলেই কি নয়!

প্রশ্নটি বিশেষভাবে উঠেছেবাংলাকে গৌরবান্বিত করার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরজয় বাংলাশ্লোগানটি নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রায়ইজয় বাংলা’–জয় হিন্দশ্লোগান দিয়ে থাকেন বাঙালির অন্তরাত্মা থেকে ওঠা এই শ্লোগান কিন্তু গেরুয়া শিবির থেকে বলা হচ্ছেমমতার জয় বাংলাবলার উদ্দেশ্য নাকি তিনি এই বাংলাকেবাংলাদেশ-এর হাতে তুলে দিতে চান কারণবাংলাদেশিরাও এই শ্লোগানটি দিয়ে থাকে বাংলাদেশিরাজয় বাংলাদেশবললেই হয়তো ভালো হত কিন্তু তারা সমানভাবে বাঙালির উত্তরাধিকারকেও বহন করতে চান সেই সূত্রেই তারা হয়তোজয় বাংলা' শ্লোগানটি দিয়ে থাকেন আসলে যেন-তেন-প্রকারেণ মমতাকে আক্রমণ করাই লক্ষ্য গেরুয়া শিবিরের কিন্তু তা করতে গিয়ে তারা যে বাংলা বাঙালিকেই অপমান করছেনসেটা বলাবাহুল্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভাষা দিবসে তাই বুক ঠুকে বলেছেনআমরা একশোবারজয় বাংলাবলব প্রয়োজনে জেল থেকেও বলবজয় বাংলা' বাঙালি হারতে শেখেনি

প্রকারান্তরে একটি গোষ্ঠী আমাদের নিজের ভাষা ঐতিহ্য থেকে বিচ্ছিন্ন করে আমাদের উপর হিন্দি কালচার চাপিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে না তো!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only