মঙ্গলবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

গোধরা কাণ্ড: ঘটনার ১৯ বছর পর গ্রেফতার অন্যতম ষড়যন্ত্রকারী

গুজরাট: ২০০২ সালে গোধরা কাণ্ডের ১৯ বছর পর গ্রেফতার হল অন্যতম অভিযুক্ত।সুনির্দিষ্ট সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাতে গোদরা পুলিশের একটি দল রেলস্টেশন সংলগ্ন সিগন্যাল ফালিয়া এলাকার একটি বাড়িতে হানা দেয়।সেখান থেকে রফিক হুসেন ভাটুককে গ্রেফতার করা হয়।

পাঁচমহলের পুলিশ সুপার লীনা পাটিল জানিয়েছেন, গোধরা কাণ্ডের অন্যতম ষড়যন্ত্রকারী ছিল ৫১ বছর বয়সী রফিক হুসেন ভাটুক। গত ১৯ বছর ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল সে। সুনির্দিষ্ট সংবাদের সূ্ত্র ধরেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রবিবার রাতেই পুলিশ ভাটুককে ধরতে অভিযান চালায়। এরপর তাকে হাতেনাতে পাকরাও করে।



ঘটনার দিন ট্রেনে আগুন ধরানোর কাজে অন্যতম অভিযুক্ত ছিল সে। ঘটনার পরেই সে দিল্লি পালিয়ে গিয়েছিল। তার বিরুদ্ধে খুন ও দাঙ্গা লাগানোর অভিযোগ হয়েছে।

পুলিশ সুপার লীনা পাটিল আরও জানান, গোধরা রেলওয়ের একজন কর্মী ছিল রফিক হুসেন ভাটুক। ওই ঘটনার দিন ট্রেনে পাথর ছোঁড়া থেকে পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত সে। এতদিন ধরে সে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে গা ঢাকা দিয়ে বেড়াচ্ছিল। গোপন সূ্ত্রে আমাদের কাছে খবর আসে যে সে পরিবারে সঙ্গে দেখা করতে আসছে। পুলিশ ওৎ পেতে ছিল। তারপরেই পুলিশের পাতা জালে ধরা দেয় সে। রফিক হুসেন ভাটুককে গোধরা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০০২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি সবরমতী এক্সপ্রেসে চেপে অযোধ্যায় করসেবা সেরে ফিরছিলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সাধু ও ভক্তরা। ট্রেনটিকে জোর করে থামিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। অগ্নিধগ্ধ হয়ে মারা যান ৫৯ জন। যা সে্ই সময় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার রূপ নেয়। 

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only