সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১

উন্নয়নশীল দেশের তালিকা থেকে বাদ পড়তে পারে সউদি

রিয়াদ: বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার(ডব্লিউটিও) উন্নয়নশীল দেশের তালিকা থেকে সউদি আরবকে বের হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় থাকলেও বিশ্বের বৃহৎ অর্থনৈতিক ফোরাম জি ২০-এর সদস্য সউদি আরব। জেনেভা ভিত্তিক বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা গত শুক্রবার রিয়াদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও বাণিজ্যনীতি তৃতীয়বারের মতো পর্যালোচনা করে।

সউদি আরবের অর্থনীতির অবস্থা ক্রমেই নিম্নমুখী হচ্ছে। দেশটির আর্থিক সঙ্গতি যে ক্রমেই নিম্নমুখী হচ্ছে,  তা একটি চিত্র থেকেই বোঝা যায়। যুবরাজ মুহাম্মদের পিতা সালমান ২০১৫ সালের ২৩ জানুয়ারি যখন দেশের বাদশাহ হন, তখন সউদি আরবের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৭৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। চার বছরের ব্যবধানে ২৩৩ বিলিয়ন ডলার কমে গিয়ে গত বছর ডিসেম্বরে সেটি নেমে আসে ৪৯৯ বিলিয়নে। এ হিসাব সউদি অ্যারাবিয়ান মানিটরি অথরিটি বা এসএএমএ-এর। অপরদিকে বিশ্বব্যাংক বলেছে, সউদিদের মাথাপিছু আয় ২০১২ সালের ২৫ হাজার ২৪৩ মার্কিন ডলার থেকে কমে ২০১৮ সালে দাঁড়ায় ২৩ হাজার ৩৩৮ মার্কিন ডলারে। টান পড়েছে ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চিত অর্থে। আইএমএফ আভাস দিয়েছে, দেশটির মোট ঋণের পরিমাণ এ বছর দাঁড়াবে জিডিপির ১৯ শতাংশ এবং আগামী বছর ২৭ শতাংশ। আর করোনা ভাইরাস ও তেলের দর পতনে ২০২২ সালে ঋণের পরিমাণ হবে জিডিপির ৫০ শতাংশ বা অর্ধেক।



সউদি অর্থনীতির এ ধারাবাহিক নিম্নগামিতার পেছনে বেশ কিছু কার্যকারণ রয়েছে। এরমধ্যে আছে ইয়েমেন যুদ্ধ মিশরে কু্য এবং আরব বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নানাভাবে হস্তক্ষেপে জড়িয়ে পড়া আমেরিকার কাছ থেকে সামর্থ্যরে চাইতেও বেশি পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে অস্ত্র কেনা এবং নিওম ফিউচারিস্টিক সিটি নির্মাণের মতো উচ্চ ব্যয়বহুল প্রকল্প গ্রহণ। এর বাইরে যুবরাজের ব্যক্তিগত বিলাসিতার বিষয়টি তো আছেই!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only