মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১

রাজ্যে বহিরাগত ঢোকানোর চেষ্টা, বিজেপি রাজ্য থেকে এখানে পুলিশ আনা হচ্ছে কেন? পুরুলিয়া থেকে মমতার হুঙ্কার

দীপক মাহান্তি, পুরুলিয়া: প্রথম দফার নির্বাচনের তিনদিন আগে পুরুলিয়ায় এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কার্যত ঝড় তুলে দিয়ে গেলেন। মঙ্গলবার পুরুলিয়ায় তিনি তিনটি সভা করেন। প্রত্যেকটি সভাতে বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ করেন। প্রতিটি সভায় জনতা উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। কাশীপুরের সভার ভিড় দেখে তিনি এতটাই উচ্ছ্বসিত ছিলেন বলেই ফেললেন ব্রিগেডের সভা কেউ এই সভা হার মানিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ১৮ মার্চ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পুরুলিয়াতে এসে পুরুলিয়ার জলের কষ্টকে নিয়ে তিনি তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঙ্গলবারেই পুরুলিয়ার জনসভাগুলোতে প্রধানমন্ত্রীর জলের সমালোচনাকে কার্যত উড়িয়ে দিয়ে বলেন, বাম আমলেও পুরুলিয়াতে জলের কষ্ট ছিল চোখে পড়ার মতো মুখ্যমন্ত্রী বলেন, গত ১০ বছরে পুরুলিয়ার জলের কষ্ট অনেকটাই তিনি বাগে আনতে পেরেছেন। আগামী তিন মাসের মধ্যে পুরুলিয়া সহ পাঁচটি ব্লকে জলের সমস্যা নিরসন হয়ে যাবে। তিনি দাবি করেন, জলের যে প্রকল্পগুলি নিয়ে রাজ্য সরকার কাজ করছে তাতে আগামী ২০২২ সালের মধ্যে পুরুলিয়ার প্রত্যন্ত প্রতিটি গ্রামে পাইপ দিয়ে জল সরবরাহ হবে। জলস্বপ্ন প্রকল্পের কথাও তিনি উল্লেখ করেন।



এই প্রকল্পে পুরুলিয়ার খরা জমি শুকনো রুক্ষ জমি যেখানে কোনও চাষ হয় না, মাছ চাষও হয় না সেইরকম ২৫ হাজার হেক্টর জমি রাজ্য সরকার চিহ্নিতকরণ করেছে। ৫৮ হাজার কোটি টাকা খরচ করে সেই জমিকে উপযুক্ত চাষযোগ্য করে চাষিদের ফেরত দেওয়ার কথাও তিনি ঘোষণা করেন। এটা মাটির সৃষ্টি প্রকল্পের আওতায় আসবে। ৭৫ কোটি টাকা খরচ করে নিতুরিয়া সহ কয়েকটি অঞ্চলে জলের ব্যবস্থা রাজ্য সরকার করে দিয়েছে বলেও তিনি জানান। আগামী দিনে রূপসী বাংলাকে শস্যশ্যামলা করতে তিনি এই মাটির সৃষ্টি প্রকল্পে আরো বেশি খরচ করবেন বলে এদিনের কাশীপুরের জনসভায়। কাশীপুরে বিধায়ক স্বপন বেলথরিয়ার বিরুদ্ধে আদিবাসীদের কিছু ক্ষোভ ছিল তা মুখ্যমন্ত্রী জানতেন তাই তিনি বলেন, কে দাঁড়াচ্ছে এটা না দেখে আপনারা সবাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভোট দিচ্ছেন এটা ভেবেই জোড়া ফুলে ভোট দিন। বিজেপি এলে আদিবাসীদের জল জঙ্গল জমির অধিকার থাকবে না এমনিতে বিজেপি সারা ভারতবর্ষের বিএসএনএল এমটিএনএল কয়লা এলআইসি  ব্যাংক সব বেঁচে দিচ্ছে। যে টাকাটা ব্যাংকে আছে সেই টাকাটা তুলতে গেলে শুনবেন ব্যাংক টাই আর নেই, তাই বিজেপিকে নয় তৃণমূলকে ভোট।



পাশাপাশি জয়পুরের বিধানসভাতে তৃণমূলের প্রার্থী উজ্জ্বল কুমারের নমিনেশন পেপারে কিছু গন্ডগোল থাকার জন্য তার প্রার্থী পদ বাতিল হয়ে যায়। সেখানে তৃণমূল যুব সভাপতি দিব্যেন্দু সিংহ দেও বিক্ষুব্ধ তৃণমূল হিসেবে দাঁড়িয়ে ছিলেন এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রকাশ্য জনসভায়  দিব্যেন্দুকে সমর্থন করে জয়পুরবাসীর কাছে আবেদন করেন তাকেই যেন এবারের তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে দেখে ভোট দেওয়া হয় এদিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মহিলাদের ভোটের উপর বেশি নির্ভর করছেন বলে জানান। 

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফের বহিরাগত প্রসঙ্গ টেনে বলেন, বিজেপি রাজ্য থেকে এখানে পুলিশ নিয়ে আসা হচ্ছে কেন? ভোটের আগে বহিরাগতদের ঢোকানোর চেষ্টা চলছে।

এদিন তিনি সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, সবাই ভোট দেবেন, না বিজেপি ভোটার লিস্ট থেকে সকলের নাম বাদ দেওয়ার ছক করছে। সভা থেকে মা, বোনেদের উদ্দেশ্যে হাতা, খুন্তি দিয়ে বিজেপিকে ঠেকানোর আবেদন।

 

 

 

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only