বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ, ২০২১

'মেয়ের মাথা, আমি কেটেছি,' কাটা মুণ্ডু হাতে থানায় বাবা

উত্তরপ্রদেশ: রাস্তা দিয়ে লোকজন হাঁটছে, আর তার মাঝখান দিয়ে রক্তমাখা কাটা মুণ্ডু হাতে নিয়ে হেঁটে চলেছে এক ব্যক্তি। মুণ্ডু থেকে রক্ত ঝরছে, আর ওই ব্যক্তির মুখে ফুটে উঠছে গর্বের হাসি। না, কোনও সিনেমার শ্যুটিংয়ের দৃশ্য নয়, এই ঘটনা উত্তরপ্রদেশের হারদোই জেলার। বুধবার সন্ধ্যায় এই বীভৎস ঘটনায় স্তম্ভিত রাস্তায় থাকা  সাধারণ মানুষ থেকে থানার পুলিশ কর্মীরা। অভিযুক্ত ব্যক্তির হাতে ঝুলছে নিজের ১৭ বছরের মেয়ে কাটা মুণ্ডু। থানায় আত্মসমর্পণ করেছে ওই ব্যক্তি। এই বীভৎস ঘটনার ভিডিও দ্রুত ভাইরাল হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। মাঝহিলা থানার সামনে দাঁড়িয়ে কাটা মুণ্ডু হাতে নিয়ে অভিযুক্তের স্বীকারোক্তি, ‘এটা আমার মেয়ের মাথা। আমি কেটেছি।হতভম্ব পুলিশ।



পরে সে পুলিশকে জানায়, ‘এক যুবকের সঙ্গে মেয়েকে আমি আপত্তিকর অবস্থায় দেখি। ধারালো অস্ত্র দিয়ে মেয়ের মাথা কেটে ফেললাম। ছেলেটিকেও খুঁজে পাইনি। না হলে ওর একই অবস্থা করতাম। আমি দুজনকেই মেরে ফেলতে চেয়েছিলাম অভিযুক্ত বাবার নাম সর্বেশ কুমার। ৪৫ বছরের সর্বেশ জানিয়েছে, তার মেয়ের এক যুবকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ছিল। এই সম্পর্ক মেনে নিতে পারেনি সে।

হারদোইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কপিল দেও সিং জানান, এক ব্যক্তি কাটা মুণ্ডু হাতে নিয়ে থানার সামনে আসে। তার নাম সর্বেশ কুমার। সে নিজের মেয়ের শিরোচ্ছেদ করেছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। প্রথমে ওই ব্যক্তি থানার সামনে দাঁড়িয়ে ছিল কাটা মুণ্ডু হাতে নিয়ে। থানার ভিতর খবর আসতেই পুলিশ তড়িঘড়ি গিয়ে ব্যবস্থা নেয়। তবে থানার একজন পুলিশ কর্মী এই ঘটনার ছবি মোবাইলে তুলে সবাইকে দেখাচ্ছিল। এই অনৈতিক কাজের জন্য ওই পুলিশকর্মীকে সাময়িকভাবে সাসপেন্ড করা  হয়েছে। অভিযুক্ত সর্বেশ কুমারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্ত শুরু হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হাথরসের ঘটনার বীভৎসতা মানুষের অজানা নয়। খুন হয়েছেন মৃতা নির্যাতিতার বাবাও। মঙ্গলবারও এক প্রতিবন্ধী নাবালিকাকেওরাল সেক্সকরতে বাধ্য করে এক ১৭ বছরের নাবালক। বাধা দেওয়ায় গলায় দোপাট্টার ফাঁস লাগিয়ে খুন করা হয় তাকে।

সম্প্রতিপশ্চিমবঙ্গের নারীরা নিরাপদ ননবলে মালদাতে এক জনসভায় দাবি করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। ফের নৃশংস ঘটনা ঘটল যোগী রাজ্যে। প্রশ্নের মুখে পড়েছে আদিত্যনাথ সরকার।

অন্যদিকে ২০১৯ সালের ন্যাশনাল ক্রাইম ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী মেয়েরা সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের শিকার হয়েছে উত্তরপ্রদেশে। ওই বছর পকসো আইনে মামলা রুজু হয়েছে ৭৫৭০টি। শ্লীলতাহানির মামলা ৪৬২৫আর ধর্ষণের ঘটনা ৩১৩১ টি।

 

 

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only