বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১

কোভিড আতঙ্কে রমযানে হালিমের বিক্রি বাড়ছে অনলাইনে

 




পুবের কলম প্রতিবেদক: সুস্বাদু, সুগন্ধি ডালের মধ্যে কয়েক টুকরো মাংসখন্ড তাতে ওপর থেকে ছোট কুচি কুচি করে কাটা ধনেপাতা ভাঁজা পেঁয়াজ ছিটিয়ে দেওয়া আর সেইসঙ্গে একটুকরো লেবুর রস মেশানো হলে এই খাবারের কি অপূর্ব স্বাদ হবে তা নিশ্চয় অনূভব করতে পারছেন! হ্যাঁ সকলের পছন্দের সেই হালিম-এর কথায় এখানে বলা হচ্ছে রমযান শুরু হতেই মুসলিম রেস্তোরাঁগুলি হালিমের খুশবুতে করতে শুরু করে সারাদিন রোযায় থাকার পর পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু খাবার হালিম-এর কোনও তুলনা নেই

গত বছরে লকডাউনের কারণে সমস্ত কিছুই বন্ধ ছিল পছন্দের রেস্তোরাঁ থেকে হালিম না পেয়ে অনেকেই বাড়িতেই হালিম করে খেয়েছেন তবে এবছর আবার সেই পুরনো ছন্দেই হালিম-এর খুশবুহতে ভরে থাকতে দেখা গেল শহরের মুসলিম রেস্তোরাঁগুলি যার মধ্যে অবশ্যই সিরাজ, আর্সেলান, জিশান রয়াল ইন্ডিয়ান-এর মতো রেস্তোরাঁগুলির নাম করতেই হয় বুধবার প্রথম রোযা থেকেই এই রেস্তোরাঁগুলি হালিম তৈরি শুরু করে দিয়েছে আর তাকে ঘিরেই রেস্তোরাঁর কর্মী-মালিকদের মধ্যে যেমন ব্যস্ততা তুঙ্গে তেমনিই ক্রেতাদের মধ্যে ব্যস্ততা লাইনে দাঁড়িয়ে হালিম কেনার

প্রতিদিন দুপুর আড়াইটা বা চারটের পর থেকে হালিম বিক্রি শুরু হয়ে যাচ্ছে এই সমস্ত রেস্তোরাঁগুলিতে অনেকেই ইফতারের মেনুর তালিকায় হালিম পছন্দ করেন ফলে বেশিরভাগ হালিম ইফতারের আগেই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে বলে জানালেন আর্সেলানের এক কর্মী সিরাজে চিকেন হালিম ২৪০ এবং মটন হালিম ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে একই দর আর্সেলানেও আবার রয়্যাল ইণ্ডিয়ানে স্পেশ্যাল রয়্যাল মটন হালিমের মূল্য ২৪০ টাকা এক একটি পাত্রে হালিমের পরিমাণ থাকে ৭৫০ মিলি গ্রাম যা আরাম করে থেকে জন খেতে পারেন এমনটাই জানালেন, জিশানের এক কর্মী তবে কোভিড আতঙ্ক আবার ফিরে আসায় অনেক রেস্তোরাঁতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা হচ্ছে আর্সেলানে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা এক জন করে ক্রেতাকে ছাড়ার পর আবার অন্য ক্রেতাকে ছাড়া হচ্ছে

আবার অনলাইনেও হালিমের চাহিদা তুঙ্গে সুইগি, জোমাটো প্রভৃতি হোমডেলিভারি সংস্থার মাধ্যমে পছন্দের রেস্তোরাঁর হালিম অর্ডার করছেন অধিকাংশ ক্রেতা রয়্যাল ইন্ডিয়ানের মালিক মুহাম্মদ শাদ' এর কথায় এবছর অনলাইনে হালিমের চাহিদা গত বারের চেয়ে অনেক বেড়েছে তিনি বলেন, শেষ বার ২০১৯ সালে অনলাইনে ৪০ শতাংশ হালিম অনলাইনে বিক্রি হয়েছিল এবছর তা বেড়ে ৬০ শতাংশ হয়েছে তাঁর কথায় , ধীরে ধীরে অনলাইনের দিকেই বেশি ঝুঁকছে মানুষ এবারের রমযানে কেমন বিক্রি হবে তা সংশয়ে ছিলেন অনেক রেস্তোরাঁর মালিকরা তবে রমযানের প্রথম দিনেই ভালোই হালিম বিক্রি হয়েছে বলে জানালেন মুহাম্মদ শাদ তিনি বলেন প্রথম রোযায় ৫০ কিলো হালিম বানানো হয়েছিল তা সন্ধ্যের মধ্যেই বিক্রি হয়ে গিয়েছে এরপর ধীরে ধীরে হালিম তৈরির পরিমাণ আরও বাড়ানো হবে বলে তিনি জানান সব মিলিয়ে এবছর আবার হালিম পেয়ে খুশি ক্রেতারা

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only