বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১

নন্দীগ্রামে গুলি চালানোর পরেই শুভেন্দু আঁতাতের কথা জানতে পারি: মমতা

 


পুবের কলম প্রতিবেদন: নন্দীগ্রামে শিশির-শুভেন্দুকে সঙ্গে নিয়েই তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য জমি অধিগ্রহণ করতে যান ২০০৭ সালে নন্দীগ্রামে গুলি চালনার ঘটনায় জড়িত ছিলেন শুভেন্দুরা ঘটনার পর-পরই নাকি একথা জানতে পারেন মমতা ! বৃহস্পতিবার বাংলা বছরের প্রথম দিন একটি বেসরকারি সংবাদ মাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিস্ফোরক তৃণমূল নেত্রী

ক্ষোভের সঙ্গে এদিন মমতা বলেন, মেদিনীপুর জেলায় এখনও অবধি তিনি গেছেন হাতে গুণে কয়েকবার রাজ্যের অন্যান্য জেলায় যেমন তাঁর অবাধ যাতায়াত তেমনটা কখনওই মেদিনীপুরে থাকেনি৷ তার কারণ নাকি অধিকারী "বাপ-বেটা" মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে বছরে একবার অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ রিভিউ মিটিং ছাড়া বেশি ওই জেলায় যাননি বলে দাবি করেন মমতা ৷তারপরও শুভেন্দু অধিকারীকে মন্ত্রিত্ব, শিশির অধিকারীকে গুরুত্বপূর্ণ পদ কেন দিলেন এই প্রশ্নের উত্তরে নেত্রীর অকপট স্বীকারোক্তি, "ওটা আমাদের একটু ভুলই হয়ে গেছে ঘরের বিবাদ সামনে আনতে চাইনি জনসমক্ষে আনতে চাইনি চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম " স্পষ্ট বললেন, "বলতে পারেন এদের একপ্রকার আমি সহ্যই করেছি "২০০৭ সালের ১৪ মার্চ নন্দীগ্রামে গুলি চলার পরপরই তিনি বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সঙ্গে শুভেন্দুদের আঁতাতের কথা জানতে পেরেছিলেন বলে সাক্ষাৎকারে বলেন তৃণমূল নেত্রী৷ বলা বাহুল্য, এদিন একাধিকবার শুভেন্দু এন্ড কোং, অর্থাৎ যারা বিজেপিতে যোগ দিয়েছে তাদের মিরজাফর, গদ্দার বলে সম্বোধন করেন মমতা সোজাসুজি জানিয়ে দেন, তিনি এদের নিয়ে কোনও কথাই বলতে চান না নাম নেওয়া তো দূরের কথা এবং সত্যি সত্যিই গোটা সাক্ষাৎকারে তাঁকে মুকুল-শুভেন্দু-শিশির-রাজীব-বৈশালীদের নাম মুখেও আনতে শোনা যায়নি

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only