বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১

কমিশনকে তোপ তৃণমূলনেত্রীর, নন্দীগ্রামে মুসলিমদের যে পাকিস্তানি বলল, তার কেন শাস্তি হবে না?

পুবের কলম প্রতিবেদক: 


নির্বাচন কমিশনের শো-কজ প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার তৃণমূলনেত্রী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জনসভায় বললেন– ‘আমায় দশটা শো-কজ করো। কিছু যায় আসে না। আমি একই জবাব দেব।মমতার পাল্টা প্রশ্ননরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে কেন কোনও অভিযোগ করা হচ্ছে না? যারা নন্দীগ্রামের মুসলিমদের পাকিস্তানি বলছেতাদের শাস্তি হবে না কেন? এদিন ডোমজুড়ের সভায় মমতা এই কথা  বলেন। বালি দুর্গাপুর শতদল সংঘের ময়দানে এই সভায় কাতারে কাতারে ছিল মানুষের উপস্থিতি। এদিনই হুগলির বলাগড়ে এক জনসভায় মমতা বলেনউন্নয়ন নিয়ে ভোট হোক। হিংসা দিয়ে নয়। সেন্ট্রাল হোম মিনিস্টার ইনস্ট্রাকশন দিচ্ছে সেন্ট্রাল ফোর্সদের গ্রামে গ্রামে গিয়ে ভোটারদের ভয় দেখাতে। ভোটের প্রচার শেষ হয়ে গেলে ওরা মেয়েদের গায়ে হাত দিচ্ছে। ছেলেদের ভয় দেখাচ্ছে। বিজেপির লোকেদের সঙ্গে গিয়ে বিজেপিকে ভোট দিতে বলছে। ওদের একটা কথাও শুনবেন না। আর ওরা বিজেপির হয়ে ভোট দেওয়ার কথা বললে থানায় গিয়ে এফআইআর করুন। বাংলার পুলিশকে উদ্দেশ্য করে মমতা বলেনআপনারা বাংলার পুলিশ ফোর্স। দয়া করে মাথা নত করবেন না। কেউ যাতে গোলমাল করতে না পারে তা দেখুন। অবাধ ভোট করার দায়িত্ব আপনাদেরও আছে।

বলাগড়ের প্রার্থী মনোরঞ্জন ব্যাপারীর কথা উল্লেখ করে মমতা বলেনতিনি একসময় রান্না করতেন। একসময় রিকশা চালাতেন। ঠেলাগাড়ি চালাতেন। মনোরঞ্জনবাবু রান্না করতে করতে বই লিখতেন। শুনেছি তিনি রিকশা চালিয়ে মনোনয়নপত্র পেশ করতে গিয়েছিলেন। আমি নিজেও রিকশা চালাতে খুব পছন্দ করি। স্কুটিও চালাতে পছন্দ করি। বলাগড়ের মানুষের উদ্দেশে মমতা আবেদন জানানআপনারা আগের বার বিজেপিকে বেশি ভোট দিয়েছিলেন। এবার তা করবেন না। সর্বনাশ হয়ে যাবে। এবার এই দলিত সাহিত্য অ্যাকাডেমির মানুষটাকে জেতান। বিজেপির উদ্দেশে তোপ দেগে মমতা বলেনপিএম কেয়ারের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা তোলা হয়েছে। তার কোনও হিসেব নেই। ওই টাকা থেকে আপনাদের ৫০০ টাকা করে ভিক্ষে দিচ্ছে। টাকা পকেটে রেখে দিন। কিন্তু ভোট কখনও ওদের দেবেন না। আমি বিনা পয়সায় চাল দেবআর সেই চাল ফোটাবেন সাড়ে শো টাকার গ্যাসে? কেন? জিজ্ঞেস করুন বিজেপিকে। ওরা মিটিংয়ে গেলেই হাজার টাকা দিচ্ছে। ওদের বলবেন ক্যাশ চাই নাগ্যাস চাই। সবকিছু তোমরা বিক্রি করে দিচ্ছ। আগামি দিনে মানুষ খাবে কী? তোমরা যা যা বন্ধ করে দিচ্ছ তাতে ১০ কোটি ছেলেমেয়ের চাকরি চলে যাবে। বিজেপির আমলে সারা দেশ ধুঁকছে শুধু গুণ্ডামি আর দাঙ্গাবাজি চলছে। চোখরাঙানি আর ধমকানি চলছে। আপনারা কি চান গুজরাটিরা বলাগড় দখল করুক? তাহলে বিজেপিকে ভোট দেবেন না।

এদিন ডোমজুড়ের জনসভায় প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে মমতা বলেনডোমজুড়বাসীর থেকে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। এখানে আগে একটা গদ্দারকে প্রার্থী করেছিলাম। সে সেচ দফতরে দুর্নীতি করে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছে। ওই গদ্দারটার জামানত বাজেয়াপ্ত করে দিন। কলকাতা থেকে দুবাইয়ে ওর প্রচুর সম্পত্তি রয়েছে। ওর চাহিদা ছিল ইঞ্জিনিয়ারিং দফতরে। ওই দফতর দিলে আরও টাকা করত। দিইনি। ওকে বনে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম। কারসাজি করে ওই মিরজাফর জনসাধারণের অনেক টাকা মেরেছে। ডোমজুড়ে মমতা বলেনবাংলাকে গুজরাত হতে দেবেন না। সবাই হাতা-খুন্তি নিয়ে বেরিয়ে পড়ুন প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে মমতা বলেন– ‘আমাকে ভেঙিয়ে কী লাভ? কত ভেঙাবেন ভেঙান। আমি আমার মতো চলি। আপনি আপনার মতো চলুন। লক্ষণরেখা পার হবেন নারাজনীতিতে সৌজন্যবোধ থাকা উচিত।’ 



এদিনই বেহালার জনসভায় মমতা বলেনতামিলনাড়ুতে ২৪০ আসনে একদফায় ভোট নেওয়া হল। আর এখানে ২৯৪ আসনের জন্য দফায় ভোট। ইচ্ছে করে এসব করেছে। যতই করোওভাবে মমতাকে হারাতে পারবে না। আমার পা-টাই জখম করে দিল। ডাক্তাররা বের হতে বারণ করেছিল। আমি ভাঙিতবু মচকাই না। বেহালার মানুষ বরাবরই আমার সঙ্গে ছিল। এবারও থাকবে। বাংলাকে কোনওমতেই গুজরাত হতে দেব না। বেহালার জনসভায় মমতা বলেনআমার নামে ন্যাশনাল চ্যানেলগুলোয় ভুলভাল বলাচ্ছে। লজ্জা করে না? মিথ্যেবাদী কোথাকার? নরেন্দ্র মোদির নামে টা কেস ফাইল হয়েছে? ওদের গলায় দড়ি দিয়ে মরা উচিত। গদ্দার টাকা বিলোচ্ছে খালি। অনেককে ২৫ কোটি টাকা দিয়ে বলছেপ্রচার করবেন না। ভণ্ড কোথাকার! বিজেপি হল ছদ্মবেশী শয়তান। অমিত শাহ করোনার সময় তো মুখ লুকিয়ে বসেছিল। তখন তো দেখা যায়নি। বলছেবাংলার মেরুদণ্ড ভাঙব। অত সহজ! আয় না পাঞ্জা লড়বি। খালি কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা ছড়াচ্ছে আর ভাবছে সব কিনে নেবে। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে বলবনাঅমিত শাহনা আমার কারও কথা শুনবেন না। সংবিধানের কথা শুনুন। প্রতিটি জনসভা জনজোয়ারে পরিণত হয়। 

 

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only