বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২১

আমিরশাহীর ঐতিহ্য, কামান দেগে ইফতার

পুবের কলম, আবু ধাবি: সালটা ১৯৩০ ব্রিটেন তখন বিশ্বকে অর্থের বিনিময়ে কামান উপহার দিচ্ছে সেই কামানেরই কয়েকটা পেয়েছিল গাল্ফ রাষ্ট্র সংযুক্ত আরব আমিরশাহী রাজরাজাদের দেশে কামানের ব্যবহার কীভাবে হবে, তা ভাবতে সময় লাগেনি শাসকদের আদেশে রমযানের আগমন বিদায় ঘোষণায় দুবাইয়ে ৬টি কামানের প্রতিটি থেকে বার করে গোলা নিক্ষেপ করা শুরু হয় পাশাপাশি, পবিত্র রমযানের প্রত্যেকদিনই ইফতারের সময় ঘোষণা করা হয় কামান দেগে চলতি বছর, দুবাইয়ের তথা বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন বুর্জ খালিফার পাশে এক পুলিশকর্মী কামান দেগে শহরবাসীকে প্রথম ইফতারের জানান দেন শারজাহতেও রয়েছে এই প্রথা সেখানে ১৯৩০ সালের পর থেকে কামান দাগার প্রচলন রয়েছে দুবাইয়ে এই প্রথা শুরু হয়েছিল ১৯৬০ সালে আবু ধাবিতে ১৯৭০-



 কামানের বৈশিষ্ট্য

 কামানে থাকে একটি ফাঁকা কার্তুজ সেই কার্তুজের মধ্যে শুধু কালো গান পাউডার ভরা থাকে এর শধের মাত্রা হল ১৭০ ডেসিবেল ১০ কিলোমিটার দূর থেকেও কামানের আওয়াজ শুনতে পান মানুষ সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর বুর্জ খালিফা, আটলান্টিস দ্য পাম, আল সালাম মসজিদ, আল মামজার বিচ, আল হাব্বাই মসজিদ এবং আল মানখুলের ইবাদতগাহে রয়েছে কামানগুলি

 

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only