সোমবার, ৩১ মে, ২০২১

অ্যাম্বুলেন্স পাননি, হেঁটেই বাড়ি ফিরতে গিয়ে যৌন লালসার শিকার করোনা জয়ী



চরাইদেও, ৩১ মে : করোনার চিকিৎসা করিয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছিলেন এক মহিলা।কিন্তু ফেরার পথে গণধর্ষণ করা হয় তাঁকে। ঘটনাটি ঘটেছে 

অসমের চরাইদেও জেলায়। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, চা শ্রমিক ওই মহিলাকে রাস্তা আটকে দুই ব্যক্তি পাশের চা বাগানের ভিতর টেনে নিয়ে যায়। সেখানেই তাঁকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। হাসপাতাল থেকে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন মা ও মেয়ে। ২৭ মে ঘটনাটি ঘটলেও পুলিশের কাছে দু'দিন পর অভিযোগ জানান নির্যাতিতা । মহিলার মেয়ে জানান, 'কয়েকদিন আগে আমাদের পরিবারের প্রত্যেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল। আমরা প্রত্যেকে আইসোলেশনে ছিলাম। বাবা ও মায়ের শরীর খারাপ হওয়ায় তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। আমিও পরে হাসপাতালে ভর্তি হই।' পরীক্ষার ফল নেগেটিভ হওয়ার পরই তাঁদের বাড়ি চলে যেতে বলা হয় বলেও জানান তিনি।কিন্তু হাসপাতাল থেকে চলে যেতে বলা হলেও  হাসপাতাল কতৃপক্ষ  মহিলাকে বাড়িতে যেতে অ্যাম্বুলেন্স দিতে অস্বীকার করেছিল।ফলে বাধ্য হয়েই হাঁটাপথে কোনভাবে রওনা দেন ওই সদ্য করোনা থেকে সেরে ওঠা মহিলা ও তাঁর মেয়ে। দুপুর আড়াইটে সময় হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় তাঁদের। যেহেতু করোনার কারণে কার্ফু চলছে তাই সেদিন রাতটা তাঁরা হাসপাতালেই  কাটিয়ে সকালে রওনা দিতেন পারেন কিনা হাসপাতালের কতৃপক্ষের কাছে জানতে চাওয়া হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ না করে দেন। এর পরই তাঁরা  হাঁটতে শুরু করেন । পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নিগৃহীতার মেয়ে কোনও ক্রমে সেখান থেকে পালিয়ে গ্রামে গিয়ে খবর দেন। হাসপাতাল থেকে গ্রামের বাড়ির দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। প্রায় দু'ঘণ্টা পর মা-কে খুঁজে পান তাঁরা। চড়াইদেওয়ের সিনিয়র পুলিশ অফিসারের দাবি, 'আমরা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। মহিলার মেডিক্যাল পরীক্ষা করানো হয়েছে।'এই পুরো ঘটনাটিকে ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। কীভাবে ২৫ কিমি পথ তাঁদের অ্যাম্বুলেন্স না দিয়েই ছেড়ে দিল হাসপাতাল প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only