রবিবার, ৩০ মে, ২০২১

মোদি ২.০ সরকারের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা কোভিড বিপর্যয়, বলছে সমীক্ষা



নয়াদিল্লি, ৩০ মে: ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ, কেরলসহ একাধিক রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন৷ সেখানে বিজেপির শোচনীয় বিপর্যয়ের পর ব্যাকফুটে মোদি-শাহ কোং৷ করোনা মোকাবিলাতেও ব্যর্থ বলে দেশবিদেশের সংবাদমাধ্যমে তুলোধনা করা হচ্ছে মোদি সরকারকে৷ এমন পরিস্থিতিতে এবিপি ও সি-ভোটারের এক সমীক্ষায় মোদি সরকারের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতার খতিয়ান উঠে এল। গত ১ জানুয়ারি থেকে ২৮ মে পর্যন্ত এই সমীক্ষা চালানো হয়। ৫৪৩টি লোকসভা কেন্দ্রে ১.৩৯ লক্ষ লোকের মতামত নেওয়া হয়। সার্ভেতে ৪৭.৪ শতাংশ লোক বলেছেন, মোদি ২.০-র সবথেকে বড় সাফল্য কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদ। এছাড়া ৪১.১ শতাংশ লোক বলেছেন, করোনা সংকটের মোকাবিলা এই সরকারের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা। দ্বিতীয় ঢেউয়ের আগাম সতর্কতা থাকা সত্ত্বেও বিজেপি সরকার কোনও ব্যবস্থা নেয়নি৷ দেশে যখন ব্যাপক হারে করোনা ছড়াচ্ছে, তখন কেন্দ্রের টিম বাংলায় ভোট প্রচারে ব্যস্ত ছিল৷ নদীতে কোভিডে মৃত মানুষের লাশ ভাসছে, অথচ জনগণের প্রতি কোনও দায়িত্ব নিতে চায়নি সরকার৷ এ হেন পরিস্থিতিতে মোদি সরকারের জনপ্রিয়তা কমছে৷ এই সমীক্ষা অনুযায়ী, মোদি সরকারের দ্বিতীয় বড় ব্যর্থতা নতুন কৃষি আইন। কৃষক সম্প্রদায়ের ২৩.১ শতাংশ মানুষ সরকারের প্রতি অসন্তুষ্ট ও ক্ষুব্ধ। ৫২.৩ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, লকডাউনের সময় তাদের কাছে সরকারের সাহায্য পৌঁছায়নি৷ ৫৩.৪ শতাংশ মানুষ মনে করছেন ২০২০ সালের মতো ২০২১ সালে লকডাউন না চাপিয়ে ভালো সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। এদিকে, ভ্যাকসিনেশন নিয়ে দেশে যখন প্রবল তাপ উত্তাপ, কেন্দ্র -রাজ্য সংঘাত তু্ঙ্গে, তখন সমীক্ষায় ৪৪.৯ শতাংশ মানুষ বলছেন, মোদি সরকার ভ্যাকসিন পরিস্থিতি ভালোভাবে সামলেছে। আবার ৪৩.৯ শতাংশের দাবি দেশের ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট উপযুক্ত নয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only