সোমবার, ৩১ মে, ২০২১

করোনা টিকার দাম, সংক্রমণ এবং ভ্যাকসিন নিয়ে শীর্ষ আদালতে তীব্র ভর্ৎসনার মুখে কেন্দ্র



নয়াদিল্লি ৩১মে: দেশে টিকাকরণ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রোষের মধ্যে পড়েছে কেন্দ্র। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, ভ্যাকসিনের ভিন্ন দাম, কম সংখ্যক মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া, ডোজের অভাব।সুপ্রিম কোর্টে জাতীয় টিকাকরণ নিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত মামলার শুনানি চলছে। বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, এল নাগেশ্বর রাও ও এস রবীন্দ্র ভটের বেঞ্চ এই মামলার শুনানিতে রয়েছেন। কেন্দ্রের তরফ থেকে সওয়াল করছেন সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা।কেন্দ্রের একাধিক পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তোলের সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা।

করোনা পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের ভ্যাকসিন নীতি প্রশ্নের মুখে। অবিজেপি রাজ্যগুলি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এই নিয়ে সরব হয়েছে। কেন্দ্র মহামারী পরিস্থিতির মধ্যেও ভ্যাকসিন নিয়েও কেন্দ্র-রাজ্যের মধ্যে দামের হেরফের করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে অবিজেপি রাজ্যগুলি। কেন্দ্রকে ভ্যাকসিন নীতি আদালতে পেশ করার নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা।

সোমবার করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে তীব্র ভর্ৎসনার মুখে কেন্দ্র। করোনার মতো মহামারীর টিকার দাম কেন্দ্র রাজ্য ভেদাভেদ হবে কেন তীব্র আক্রমণ শানিয়েছে শীর্ষ আদালত। কেন্দ্রের ভ্যাকসিন নীতি আদালতে পেশ করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এদিন স্বতোঃপ্রণোদিত মামলার শুনানিতে এই নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত।

কেন্দ্র-রাজ্য ভ্যাকসিন নীতি নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে। কেন্দ্রের থেকে বেশি দাম দিয়ে রাজ্য গুলিকে ভ্যাকসিন কিনতে হচ্ছে। কেন্দ্রের এই ভ্যাকসিন নীতির তীব্র সমালোচনা করেছে শীর্ষ আদালত। তিন বিচারপতির বেঞ্চে ছিল শুনানি। বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি এল নাগেশ্বর রাও এবং বিচারপতি এস রবীন্দ্র ভাট। তিন বিচারপতিই ভ্যাকসিন নীতি নিয়ে তীব্র ভর্ৎসনা করেছে তাঁরা।

তীব্র ভ্যাকসিন সংকটের মধ্যে কীভাবে কেন্দ্র ও রাজ্য দুটি আলাদা দামনির্ধারণ করা হল তা নিয়ে কেন্দ্রকে তীব্র ভর্ৎসনা করেছে শীর্ষ আদালত। ৪৫ উর্ধ্বদের প্রথমে টিকাকরণ করার শুরু পর ১৮ থেকে ৪৪ বছরের টিকাকরণশুরু হয় কিন্তু তাঁদের টিকাকরণ একসঙ্গে মিলিয়ে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই নিয়ে কেন্দ্রকে কাঠগড়ায় দাড় করিয়েছে শীর্ষ আদালত।

ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের টিকাকরণ শেষ হয়ে যাবে বলে শীর্ষ আদালতকে জানিয়েছে কেন্দ্র। তার তোরজোর চলছে জুন মাসের মধ্যে দেশে ১২ কোটি টিকা হাতে আসবে বলে জানা গিয়েছে। টিকাকরণ শেষ করার দিকেই বেশি নজর দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে  ।

সুপ্রিম কোর্টে এর আগের একটি শুনানিতে হলফনামায় কেন্দ্র জানিয়েছিল, দেশে জুলাই মাসের মধ্যে টিকার উৎপাদন আরও বৃদ্ধি করা হবে৷ তারা বলেছিল, আর্থিক ঝুঁকি নিয়ে এতদিন টিকা উৎপাদন করছিল সিরাম ইনস্টিটিউট ও ভারত বায়োটেক। তাদের জন্য আর্থিক বরাদ্দ বাড়িয়েছে সরকার। ফলে জুলাই মাস থেকেই উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only