মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১

দক্ষিণ আফ্রিকায় কয়েক কোটি টাকা আর্থিক প্রতারণা মামলায় সাতবছরের কারাদণ্ড গান্ধীজির প্রপৌত্রীর




পুবের কলম ওয়েবডেস্কঃ মহাত্মা গান্ধীর প্রপৌত্রী আশিস লতা রামগোবিনকে (৫৬) ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকার জালিয়াতি মামলায় ডারবানের একটি আদালত ৭ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেছে। সোমবার আদালত আশিস লতা রামগোবিনকে প্রতারণা মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে। তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী এসআর মহারাজকে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ ছিল।  


জানা গেছে, ভারত থেকে রেশম ভর্তি তিনটি কন্টেনারের আমদানি শুল্কের জন্য  তাঁকে দক্ষিণ আফ্রিকার মুদ্রায় ৬.২ মিলিয়ন র্যারন্ড দিয়েছিলেন এসআর মহারাজ নামে এক ব্যবসায়ী। অভিযোগ,  লতা রামগোবিন ওই ব্যবসায়ীকে জানান রেশমের তিনটি কন্টেনার এনেছেন। 

কিন্তু আর্থিক সমস্যার ফলে আমদানি শুল্ক তিনি দিতে পারছেন না। বন্দর থেকে কন্টেনার নিতে তাঁর অর্থের প্রয়োজন। এরপর শুল্ক মেটানোর নাম করে জাল কাগজপত্র দেখিয়ে ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে আগাম টাকা নিয়েছিলেন রামগোবিন। 


শুধু তাই নয় ওই ব্যবসায়ীকে মুনাফার ভাগ দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন গান্ধীজীর নাতনির মেয়ে। কিন্তু এসআর মহারাজ নামে ওই ব্যবসায়ী পরে বুঝতে পারেন, সমস্ত কাগজপত্রই ভুয়ো! তিনি প্রতারিত হয়েছেন। 


এরপরই ২০১৫ সালে আদালতে মামলা গড়ায়। তদন্ত শুরু হলে প্রাথমিকভাবে আটক করা হয়েছিল গান্ধীজির প্রপৌত্রী রামগোবিনকে। সেসময়ে শেষপর্যন্ত ৫০ হাজার বন্ডের ব্যক্তিগত মুচলেকায় ছাড়া পান তিনি। কিন্তু আদালতে এতদিন ওই প্রতারণা মামলা চলছিল। অবশেষে দোষী সাব্যস্ত হন গান্ধীজির প্রপৌত্রী। যার ফলস্বরূপ তাঁকে ৭ বছরের জেলের সাজা দিয়েছে আদালত।


লতা রামগোবিন প্রখ্যাত মানবাধিকার কর্মী ইলা গান্ধী এবং প্রয়াত মেওয়া রামগোবিন্দের মেয়ে। ডারবানের স্পেশালাইজড কমার্শিয়াল ক্রাইম কোর্ট লতাকে দোষী সাব্যস্ত ও সাজা উভয়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি দিতেও অস্বীকার করেছে। গান্ধীজির প্রপৌত্রীর আর্থিক প্রতারণা মামলায় কারাদণ্ড হওয়ায়  চাঞ্চল্যকর ওই ঘটনায় অবাক হয়েছেন অনেকেই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only