বুধবার, ৯ জুন, ২০২১

স্কুটি চড়ার 'স্পর্ধা! দলিত তরুণীর‘সাজা’ গণধর্ষণ

 


 


 

পুবের কলম, ওয়েবডেস্ক: দলিত হয়ে স্কুটি চড়ার স্পর্ধা। তরুণীকে (১৯) সবকশেখাতে ৬ জনে মিলে করল গণধর্ষণ। দলিত মেয়ে কিনা চড়বে স্কুটি! এটা মেনে নিতে না পারার জন্যই এই পাশবিক অত্যাচার। ঘটনাটি ঘটে ৩১ মে উত্তরপ্রদেশের বরেলিতে। এতদিন পর বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে। যোগী রাজ্যে দলিত বিদ্বেষ কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে এই নৃশংস ঘটনা থেকে তা স্পষ্ট। এই ঘটনায় ৬ অভিযুক্তর মধ্যে পুলিশ অবশ্য দুজনকে গ্রেফতার করেছে।

নির্যাতিতার বাড়ি ভগবানপুর ধিমরি গ্রামে। ঘটনার দিন সে তার দুই স্কুল বন্ধুর সঙ্গে স্কুটি চড়ছিল। বেশ কিছুটা দূরে যেতেই গ্রামের কয়েকজন যুবক তাদের পথ আটকায়। স্কুটি থেকে ওই তরুণীকে টেনে-হিঁচড়ে নামিয়ে শুরু হয় অত্যাচার। বন্ধুরা বাধা দিতে গেলে তাদেরও বেধড়ক পেটানো হয়। তাদের মধ্যে থেকে একজন কোনওক্রমে পালিয়ে যায়। বেধড়ক মারে আর এক বন্ধু অচৈতন্য হয়ে পড়ে। ওই দলিত তরুণীকে গণধর্ষণের পর শাসানো হয় বাড়ির কাউকে, পুলিশকে ঘটনার কথা জানালে পরিণাম ভয়ংকর হবে। তাকে প্রাণনাশেরও হুমকি দেওয়া হয়। পরিবারের বদনামেরকথা ভেবে ওই তরুণী প্রথমে মুখ খুলতে চায়নি। পরে অবশ্য ৫ জুন সে এই ঘটনার কথা পরিবারকে জানায়। নির্যাতিতার দাদা জানান, পাশবিক অত্যাচারে মানসিকভাবে অত্যন্ত ভেঙে পড়েছে তার বোন। তার শরীরে একাধিক আঘাত লেগেছে। অভিযুক্তরা হুমকি দিয়েছিল পুলিশকে জানালে পরিণতি মারাত্মক হবে।

পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, নির্যাতিতা তরুণী প্রথমে বিষয়টি বাড়ির লোকদের জানাতে চায়নি, তারা বিব্রতবোধ করতে পারে ভেবে। ৫ জুন এফআইআর দায়ের হয়। নির্যাতিতার দাদা ও তার স্কুল বন্ধুরা তাকে (তরুণীকে) স্থানীয় ইজ্জতনগর থানায় নিয়ে আসে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে। নির্যাতিতা যে লিখিত অভিযোগ করেছে তাতে বলা হয়েছে স্কুলের এক বন্ধুর সঙ্গে সে স্কুটি চড়ছিল। আর একটি বাইকে তার অন্য বন্ধুরা ছিল। যখন তারা গ্রামের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল সেইসময় কয়েকজন যুবক তাদের পথ আটকায়। তাদের মধ্যে থেকে তিন জন তাকে স্কুটি থেকে টেনে হিচড়ে নামিয়ে আনে। বাকিরা তার অন্য বন্ধুদের ধরে পেটাতে শুরু করে। এই অবস্থায় তার এক বন্ধু হামলাকারীদের হাত থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও আর এক বন্ধু মার খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। অজ্ঞান হয়ে যায়। নির্যাতিতার এক বন্ধু জানায়, হামলাকারীরা আমাদের ফোন কেড়ে নেয়। বেধড়ক মারতে শুরু করে। একসময় আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। বন্ধুর জন্য আমি কিছুই করতে পারলাম না। বরেলির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রোহিত সিং সজওয়ান বলেন, নির্যাতিতার সঙ্গে ওই গ্রামে পুলিশ টিম পাঠানো হয়েছিল অভিযুক্তদের ধরার জন্য।        

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only