মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১

কথায় কথায় দিল্লি আর ৩৫৬ ধারার জুজু দেখালে মানুষ ভালোভাবে নেবে না, বিস্ফোরক রাজীব

 



 

পুবের কলম প্রতিবেদকঃ ভোটের আগে ঘটা করে অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন। নেমেছিলেন প্রবল বিরোধিতায়। সভা-সমিতিতে নরম-গরম ভাষণও দিয়েছিলেন। কিন্তু ভোটের ফল ঘোষিত হতেই দেখা গেল ফের বিপুল জনসমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় এল তৃণমূল কংগ্রেস। আর তারপরেই একাধিক বিজেপি নেতা-কর্মী দলবদলের জন্য পা বাড়িয়েছেন। বেসুরে বাজছেন অনেকেই। এবার কি সেই তালিকায় নাম লেখালেন প্রাক্তন সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়!

 মঙ্গলবার তাঁর একটি ট্যুইট ঘিরে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা। হবে নাই বা কেন,  বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বা খোদ রাজ্যপাল যখন রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। একটি অংশ রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি করছেন, তখন অন্য কথা বলছেন রাজীব। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, কথায় কথায় দিল্লির জুজু দেখানো রাজ্যের মানুষ ভালো চোখে দেখেন না। ৩৫৬ ধারা নিয়েও ট্যুইটারে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন তিনি ট্যুইটারে লিখেছেন, সমালোচনা তো অনেক হল... মানুষের বিপুল জনসমর্থন নিয়ে আসা নির্বাচিত সরকারের সমালোচনা ও মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করতে গিয়ে কথায় কথায় দিল্লি, আর ৩৫৬ ধারার জুজু দেখালে বাংলার মানুষ ভালোভাবে নেবে না। এখানেই তিনি থেমে থাকেননি। কী  করতে হবে সে কথাও লিখেছেন। রাজীবের কথায়, আমাদের উচিত সকলের রাজনীতির উর্ধে উঠে,কোভিডও ইয়াস’-এই দুই দুযোর্গে বিপর্যস্ত বাংলার মানুষের পাশে থাকা।

এদিকে রাজীবের মন্তব্য ঘিরে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক জল্পনা। সূত্রের খবর,  ভোটের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে দলীয় কোনও বৈঠকে দেখা যায়নি। দলের নেতাদের ফোনও নাকি তিনি ধরছেন না। এদিনই দলের বৈঠক ডাকা হয়েছিল। দিলীপ ঘোষের ডাকা ওই বৈঠকে অনুপস্থিত ছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তিনিই নন,  মুকুল রায়ও ছিলেন না। শুভেন্দু গিয়েছিলেন দিল্লিতে।

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only